ব্রেকিং নিউজ
Home - অপরাধ - মঠবাড়িয়ায় দুই মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে সাজানো মামলা দিয়ে পুলিশী হয়রানীর প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন

মঠবাড়িয়ায় দুই মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে সাজানো মামলা দিয়ে পুলিশী হয়রানীর প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি 🔴

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় রেদোয়ান গোলদার নামে এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে সাজানো অস্ত্র মামলা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান হাওলাদারকে চোরাচালানী সাজানো মামলা দিয়ে হয়রাণির অভিযোগ উঠেছে। সাজানো এ মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে ।
আজ রবিবার মঠবাড়িয়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সম্মূখ সড়কে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড আযোজিত দেড় ঘন্টা ব্যাপী এ মানববন্ধনে ও প্রতিবাদ সমাবেশে সড়কের দু‘পাশ জুড়ে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার সহ¯্রাধিক জনতা অংশ নেন।
উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার মো. বাচ্চু মিয়া আকন এর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য দেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুল হক খান মজনু, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা শাহ আলম দুলাল, বীর মুক্তিযোদ্ধা আফজাল হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. এমাদুল হক খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ফারুক উজ জামান, নির্যাতিত রোদোয়ান গোলদারের মা সুলতানা রহমান পুতুল, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড নেতা মো. এমাদুল হক দুলাল, সাধারণ সম্পাদক মাইনুল আহসান, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আলাউদ্দিন আল আজাদ, জাহাঙ্গীর হোসেন, মশিউর রহমান মর্তুজা ও শ্রমিক লীগ সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ।
পরে হয়রানী মূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেন বীর মুক্তিযোদ্ধারা।

 

সমাবেশে অভিযোগ করা হয়, গত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন চলাকালীন সময়ে মঠবাড়িয়া থানা পুলিশ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান রেদোয়ান গোলদার রিরুদ্ধে সাজানো অস্ত্র উদ্ধার মামলায় আসামী করে। এদিকে নির্বাচন পরবর্তি সম্প্রতি উপজেলার তুষখালী ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান হাওলাদাকে চোরাকারবারী দেখিয়ে সাজানো মামলায় আসামী করে নেছারাবাদ থানা পুলিশ।
বক্তরা বলেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন চলাকালীন সময়ে সাবেক সাংসদ স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক প্রভাবশালীদের ইন্ধনে তৎকালীন থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার প্রভাবিত হয়ে অন্যায় ভাবে অস্ত্র উদ্ধার দেখিয়ে রেদোয়ান গোলদারকে গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধারা ক্ষুব্দ হয়ে প্রতিবাদ কর্মসূচির ডাক দেয়। পরে জেলা প্রশাসক মুক্তিযোদ্ধাদের বিষটি গুরুত্ব সহকারে দেখার আশ^াস দিলে প্রতিবাদ কর্মসূচি প্রত্যাহার করেন। কিন্ত রহস্য জনক কারনে পুলিশ তড়িঘরি করে সাজানো ওই অস্ত্র মামলা দায়েরের মাত্র ১০ দিনের মাথায় মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট দেয়।

রেদোয়ান গোলদার গত ৮ নভেম্বর থেকে জেল হাজতে রয়েছেন। তিনি উপজেলার তুষখালী গ্রামের প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ইউনিয়ন আ.লীগ সাবেক সভাপতি আজিজুর রহমান গোলদারের ছেলে ও ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের বিরুদ্ধে পুলিশের এ সাজানো মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে আগামী কাল গণ স্বাক্ষর কর্মসূচি ঘোষণা করেন। পরে বিক্ষোভ, অবরোধ ও হরতাল দেয়ার কর্মসূচির ডাক দেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল কাউয়ূম স্মারকলিপি পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিষয়টি যথা সময়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত

Leave a Reply

x

Check Also

পিরোজপুরে বিএনপি’র কালো পতাকা মিছিল পুলিশী বাঁধায় পন্ড

পিরোজপুর প্রতিনিধি 🔴 নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে এবং দ্বাদশ জাতীয় সংসদ বাতিলের দাবিতে কেন্দ্রীয় ...