জাসেম আলম >>
’মোবাইল ফোন (ইলরেজী – Mobile phone), সেলফোন,মুঠোফোন বা সেলুলার ফোন বা হ্যান্ডফোন যাই বলিনা কেন তারবিহীন টেলিফোন বিশেষ। এটা যে আমাদের জীবনের কতটা জায়গা দখল করে নিয়েছে সেটা বুঝতে পারা যাবে যদি মাত্র ১টি দিন হাত থেকে যন্ত্রটাকে দূরে রাখি। আমরা যে মোবাইল ফোন ব্যবহার করি বা চিনি তার জন্ম ১৯৭৩ সালে। আজকের বিখ্যাত মোবাইল ফোন নির্মাতা মটরোলার হাত ধরে যাত্রা শুরু করে সেলুলার ফোন।নাম দেয়া হয় Dyna Tac 8000X. মজার ব্যাপার কি জানেন? এই ফোনটাতে কোন ডিসপ্লে ছিলোনা। ১৯৭৩ সালের ৩ এপ্রিল মটরোলার কর্মকর্তা Dr.Martin Cooper বেল ল্যাবস এর কর্মকর্তা Dr. Joels engel এর সাথে বিশ্বের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো মোবাইল ফোনে কথা বলেন। মোবাইল ফোন প্রথম বানিজ্যিক সংস্করন বাজারে আসে ১৯৮৩ সালে, ফোনটির নাম ছিল ডায়না টিএস ৮০০এক্স।
বাংলাদেশে মোবাইল ফোন প্রথম চালু হয় ১৯৯৩ সালের এপ্রিল মাসে।বর্তমানে বাংলাদেশে মোট ৬ টি মোবাইল ফোন কোম্পানি রয়েছে। এরা 3G সেবা দিচ্ছে, একমাত্র টেলিটক হচ্ছে দেশীয় কোম্পানি।। এদের প্রত্যেকটি ১১ টি ডিজিটের নম্বর। এগুলো- (১)সিটিসেল, (২)রবি,(৩)গ্রামিনফোন, (৪)বাংলা লিংক, (৫)টেলিটক, এয়ারটেল।
বর্তমানে বাংলাদেশে মোবাইলফোন ব্যবহারকরাীর সংখ্যা আছে প্রায় ৭কোটি। বিশ্বে বর্তমানে প্রায় ৪৫০কোটি মানুষ মোবাইল ফোন ব্যাবহারকারী। বছর শেষে ৫৫০কোটি ছাড়িয়ে যাবে। ব্যবহারকারীর সংখ্যা যেমন দ্রুতবৃদ্ধি তেমনি উপকারের দিক দিয়েও যে আধুনিক বিশ্বে দ্রুতগতিসম্পন্ন যোগাযোগ ব্যবস্থা যার গড় হিসাব প্রতি মিনিটে ২৮৮০RTC স্কয়ার =৪৮hr উইথ মানব জীবনের কার্য পদ্ধতি ফাস্ট তা আর কারো অজানা নয়। যেমন স্বপ্ন ছিল মোবাইল আবিষ্কার লগ্ন গুলোতে। আজ আমি আর মোবাইল ফোনের গুণ-কীর্তন করতে চাইনা। গুন- কীর্তন সম্পর্কে আমরা সবাই অবগত। কিন্তু অপকারিতা সম্পর্কে আমরা পুরোপুরি অবগত নই। বিশেষ করে নতুন প্রজন্মকে অবগত ও সচেতন করার লক্ষেই আমার এই লেখা।
মোবাইল ফোন অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে শারিরীক ও মানসিক নানা সমস্যায় পড়ছেন ব্যবহারকারীরা। যেমন–(১) হারানোর ভয়, (২) স্লিপ টেক্সটিং, (৩)কমতে পারে চোখের জ্যোতি,(৪)কানে কম শোনা, (৫)শরীরের অস্থি -সন্ধিগুলোর ক্ষতি,(৬)কমে যেতে পারে শুক্রাণু, (৭) ঘুমের মারাত্মক সমস্যা (৮) জীবানুর অভয়ারণ্য। প্রয়োজন ছাড়া মোবাইল ফোন ব্যবহারে মূল্যবান সময় ও অর্থ উভয়ই নষ্ট হয়। এতে তরুন সমাজ অশ্লীল ছবি (অডিও-ভিডিও) এর মাধ্যমে ব্যস্ত থাকে। বাবা- মার অবাধ্যতা,, স্বমীর অবাধ্যতা, সংসার ভাঙ্গা, নষ্ট চরিত্রের যুবক-যুবতী তৈরি হয়। এতে করে টাকা নষ্ট করার কারনে আর্থিকভাবে ক্ষতি হওয়ার পাশাপাশি তরুন সমাজ কোন সমাজিক কাজে অগ্রসর হচ্ছেনা। অভিভাবকের কাছ থেকে টাকা নিয়ে মোবাইলের পিছনে খরচ করছে। এ এক বড় নেশা,, যা মাদকের নেশাকেও হার মানায়।
আসুন আমরা সবাই প্রয়োজন ছাড়া মোবাইল ব্যবহার বন্ধ করি। তরুন সমাজকে জাগ্রত করি।
লেখক >> জাসেম আলম, আইন বিভাগের ছাত্র, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন