মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি >>

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া থেকে প্রকাশিত অনলাইন পত্রিকা মঠবাড়িয়া কণ্ঠের নির্বাহী সম্পাদক  সাংবাদিক সোহেল আমীনের ছোট মেয়ে উর্মি আক্তার (১০)নিখোঁজের তিনদিন পরে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থা উদ্ধার হয়েছে। হত শুক্রবার থেকে শিশুটি নিখোঁজ ছিল।

নিহত শিশুটি উপজেলার মধ্য বড়মাছুয়া সরকারী প্রাথ,কি বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণীতে লেখাপড়া করে আসছিল।

ধারনা করা হচ্ছে পরিকল্পিতভাবে দৃর্ত্তরা শিশুটিকে হত্যার পর লাশ নালায় ফেলে রাখে। পুলিশ এ বিষয়ে তদন্ত চালাচ্ছে।

সথানা ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সাংবাদিক সোহেল আমিনের ছোট মেয়ে উর্মি  ছোটমাছুয়া গ্রামের বাড়ি দাদির কাছে থাকত। গত শুক্রবার বিকালে শিশু উর্মি তার সহপাঠি বান্ধবীর বাড়িতে গিয়ে আর বাড়ি ফেরেনি। শিশুটি নিখোঁজের বিষয়ে তার বাবা সাংবাদিক সোহেল আমিন  নিজের সামাজিক সাইট ফেসবুকে উর্মির সন্ধান চেয়ে একটি পোস্ট দেন।

আজ রবিবার সকালে উপজেলার ছোট মাছুয়া গ্রামের বাড়ির  বসত ঘরের পিছনে একটি নালার ভেতর নিখোঁজ শিশুটির লাশ পাওয়া যায়।

এদিকে আজ রবিবার সকালে পরিবারের স্বজনরা বসত ঘরের পিছনে নালার ভেতর গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থার তার লাশ দেখতে পায়।

এদিকে এ মর্মান্তিক মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে সাংবাদিক মহল ও গ্রামবাসিদের মাঝে শোকের ছাঁয়া নেমে আসে। নিহত শিশুটির পরিবারে এখন শোকের মাতম চলছে।

মঠবাড়িয়া সার্কেল অফিসার (এএসপি) কাজি শাহনেওয়াজ  আজ রবিবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। খবর পেয়ে মঠবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি আব্দুস সালাম আজাদী ও সাধারণ সম্পাদক মো. জিল্লুর রহমান ও সাংবাদিক ইসমাইল হাওলাদারসহ  মঠবাড়িয়ার কর্মরত সাংবাদিকরা ঘটনা যান । এদিকে এ মর্মান্তিক মৃত্যুর বিষয়ে কোন রহস্য এখনও উদঘাটন করা যায়নি।

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ কেেএম তারিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থল হতে লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল করা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছ। এঘটনায় মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করা হবে।

সাংবাদিক সোহেল আমিনের ছোট মেয়ে উর্মির মর্মান্তিক মৃত্যুতে আজকের মঠবাড়িয়া পরিবার গভীরভাবে সমবেদনা জানাচ্ছে।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন