পিরোজপুর প্রতিনিধি > পিরোজপুরে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম কার্ড নিবন্ধনে ব্যবহারের জন্য জাল জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরীর সময় ২ জনকে আটক করেছে সদর থানা পুলিশ। আটককৃতরা হলো মোবাইল ফোন কোম্পানী এয়ারটেল পিরোজপুর অফিসে কর্মচারী সাদি মাহমুদ (২৪) এবং পিরোজপুর সরকারি মহিলা কলেজের সামনে অবস্থিত কনফিডেন্স অফিস মেশিনারিজ নামের কম্পিউটার দোকানের কর্মচারী শাকিল শেখ (২২) । বুধবার গভীর রাতে পিরোজপুর শহরের পাড়েরহাট সড়কের আইডিয়াল কিনিকের নিচ তলায় অবস্থিত কনফিডেন্স অফিস মেশিনারিজ নামে একটি কম্পিউটার দোকান থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় পিরোজপুর সদর থানার উপ-পরিদর্শক মৃনাল চন্দ্র সিকদার বাদী হয়ে এয়ারটেল পিরোজপুর অফিসের টিম ম্যানেজার তারেকুর রহমান ও কম্পিউটার দোকানের মালিক জুয়েলসহ ৪ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেছেন।
পিরোজপুর সদর থানা সূত্রে জানা গেছে, তারা এয়ারটেল মোবাইল কোম্পানীর সিম রেজিষ্ট্রেশনের জন্য গ্রাহকের নামে জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে ভুয়া পরিচয়পত্র তৈরী করছিলেন। একটি গোয়েন্দা সংস্থার দেয়া সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ বুধবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে দোকানটিতে অভিযান চালিয়ে দুই জনকে আটক করে এবং প্রিন্টকৃত ২৬৪টি ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্রসহ একটি কম্পিউটার জব্দ করেছে।
আটক সাদী মাহামুদ জানায় পিরোজপুর এয়ারটেল অফিসের টিম ম্যানেজার তারেকুর রহমান একটি তালিকা দিয়ে তাকে এসব পরিচয়পত্রের কপি করার জন্য নির্দেশ দেয়। কম্পিউটার দোকানের কর্মচারী সাকিল সেখ জানায়, এয়ারটেল অফিস থেকে তার মালিক জুয়েলকে এ রকম ৫ হাজার জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরীর অর্ডার দেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঈদুল ফিতরের আগে একই কম্পিউটার দোকান থেকে বাংলা লিংক মোবাইল কোম্পানীর গ্রাহকের এ রকম ৭ হাজার জাল জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরী করা হয়েছে।
পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মাসুমুর রহমান বিশ্বাস জানান, এ ঘটনায় পিরোজপুর সদর থানার উপ-পরিদর্শক মৃনাল চন্দ্র সিকদার বাদী হয়ে ৪ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন। তবে অন্য দুই আসামী পলাতক রয়েছে। আটক সাদী ও শাকিলকে আদালতের মাধ্যমে জেলে প্রেরণ করা হয়েছে।

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন