দেবদাস মজুমদার >>

পিরোজপুর-৩ মঠবাড়িয়া একক আসনে মহজোট মনোনীত প্রার্থী হিসেবে জাতীয় পার্টির(এরশাদ) ডা. রুস্তুম আলী ফরাজী বিপুল ভোটে জয় লাভ করেন। এবার নিয়ে তিনি এ একক আসনে ৪ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেন। এছাড়া তিনি একবার উপজেলা চেয়ারম্যানও নির্বাচিত হন। এবার একাদশ সংসদ নির্বাচনে এ আসনে নৌকার কোন প্রার্থী দেয়নি মহাজোট। ফলে লাঙল প্রতীকে স্থানীয় আ.লীগের নেতা কর্মীরা জোটবদ্ধ হয়ে মহাজোটের প্রার্থী ডা. রুস্তুম আলী ফরাজিকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করেন। অপর দিকে পিরোজপুর-৩ মঠবাড়িয়া একক আসনে মহাজোট প্রার্থী ডা. রুস্তম আলী ফরাজি লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে ১লাখ ৩৫ হাজার ৩’১০ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে বিজয়ী হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী বিএনপির রুহুল আমিন দুলাল ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ৭ হাজার ৬৯৮ ভোট পান। ডা, রুস্তুম আলী ফরাজি চার বারের সংসদ নির্বাচনে এবারই সর্বোচ্চ ভোটে জয় লাভ করেন।
জানাগেছে, বর্তমান সাংসদ সদস্য ডা. রুস্তুম আলী ফরাজী আসনে একবার জাতীয় পার্টি, একবার বিএনপি ও একবার স্বতন্ত্র প্রার্থী আর এবার জাতীয় পার্টি থেকে মহাজোট মনোনীত প্রার্থী হয়ে টানা চার বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে জাতীয় পার্টি , ২০০১ সালে বিএনপির ও ২০১৪ সালে স্বতন্ত্র ও ২০১৮ সালে জাতীয় পার্টির( মহাজোট প্রার্থী) প্রার্থী হয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ডা. রুস্তুম আলী ফরাজি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তাঁর ব্যাক্তিগত ভোট ব্যাংকের কারনে এ আসনে সবগুলো নির্বাচনে মূল প্রতিদ্বন্দী ।
এবার মহাজোট প্রার্থী ডা. রুস্তুম আলী ফরাজির লাঙল প্রতীক জয়ী করতে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নির্বাচনী মাঠে সরব ছিলেন। ফলে এবারই তিনি বিপুল ভোটের ব্যবধানে ধানেরশীষ প্রতীক পরাজিত করেন।
ডা, রুস্তুম আলী ফরাজি স্থানীয়ভাবে একজন গণমানুষের নেতা হিসেবে পরিচিত। তিনি একজন সৎ জনপ্রতিনিধি হিসেবে এলাকার সাধারণ মানুষের আস্থারও প্রতীক । এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা, শিক্ষা ব্যবস্থা ও স্বাস্থ্য উন্নয়নে তিনি বিশেষ অবদানও রেখেছেন। তিনি একজন দক্ষ পার্লামেন্টারিয়ান হিসেবেও সারা দেশে পরিচিতি লাভ করেছেন। তাঁর নির্বাচনী আসনের মানুষ এবার আশা করছেন ডা. ফরাজিকে এবার মন্ত্রী হবেন।
নির্বাচনের আগে জাতী পার্টি (এরশাদ) মঠবাড়িয়া শহীদ মোস্তফা খেলার মাঠে একটি জনসভার আয়োজন করে। ওই জনসভায় পার্টির চেয়ারম্যান হোসাইন মুহম্মদ এরশাদসহ জাতীয় পার্টির ডজনখানেক কেন্দ্রীয় নেতা উপস্থিত ছিলেন। ওই সমাবেশে এলকাবাসির দাবির প্রেক্ষি এরশাদ ঘোষণা দেন যে আপনারা যদি এবার ডা. ফরাজিকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করতে পারেন তাহলে ডা. ফরাজি মন্ত্রীত্ব পাবেন। এরপর থেকে এলাকাবাসি ডা. ফরাজি মন্ত্রী হবেন এমন আশায় বিপুল ভোটে বিজয়ী করেন।

এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি নুরুজ্জামান লিটন বলেন, দীর্ঘদিন আওয়ামীলীগ ও জাতীয়পার্টি এক হয়ে কাজ করেছে। ডা. রুস্তুম ফরাজী এবার নিয়ে চার বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য। এবার তিনি মহাজোটের প্রার্থী হয়ে এ আসনে আবার বিজয়ী হয়েছেন। আমাদেও পার্টির চেয়ারম্যান ডা. ফরাজিকে মন্ত্রী করার কথা দিয়েছিলেন। তাই মঠবাড়িয়ার আপামর জনতা স্বাস্থ্য অথবা স্থানীয় সরকার মন্ত্রী হিসেবে পাওয়ার অপেক্ষা করছেন।

এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি রফিউদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস বলেন, ডা. ফরাজি একজন দক্ষ পার্লামেন্টারিয়ান। তিনি একজন সৎ ও গ্রহণযোগ্য জনপ্রতিনিধি। এবার মহাজোটের প্রার্থী হয়ে তিনি বিপুল ভোটে এ আসনে জিতেছেন। তিনি চার বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হযেছে। আমরা মঠবাড়িয়া বাসি তাকে মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চাই।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন