মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি >>

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় কোচিং ক্লাসের শিক্ষকের মারধরে তানজিল(১৪) নামে অস্টম শ্রেণী পড়ুয়া এক শিক্ষার্থী আহত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। কোচিং সেন্টারে সহপাঠি এক ছাত্রীর সাথে কথা বলার অপরাধে শিক্ষক গিয়াস উদ্দিন আজ রোববার তার কোচিং সেন্টারে ওই শিক্ষার্থীকে নির্দয়ভাবে মারধর করে। আহত শিক্ষার্থীকে সহপাঠিরা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে।

আহত তানজিল কে,এম, লতীফ ইনস্টিটিউশনের অস্টম শ্রেণীতে লেখাপড়া করছে। সে মঠবাড়িয়ার আঙ্গুলকাটা গ্রামের মৃত লাবু তালুকদারের ছেলে।

আহত তানজিল জানায়, ওই স্কুলে ক্রীড়া শিক্ষক গিয়াস উদ্দিনের কোচিং সেন্টারের সে একজন নিয়মিত ছাত্র। রোববার সকালে কোচিং ক্লাস শেষে ভুলে বই ফেলে রেখে আসে। পরে দুপুরে স্কুলের টিফিন চলাকালীন সময় ফেলে আসা বই আনতে সে কোচিং সেন্টাওে যায়। এসময় শিক্ষক গিয়াস উদ্দিন তুচ্ছ ঘটনায় তাকে নির্দয়ভাবে বেত্রাঘাত ও লাথিও মেরে মারাত্মক আহত করে।
তানজিলের ফুফু তাসলিমা বেগম জানান, এর আগেও নানা অজুহাতে তানজিলকে কোচিং শিক্ষক পিটিয়েছে।
অভিযুক্ত শিক্ষক গিয়াস উদ্দিন কোচিং সেন্টারের ভিতরে সহপাঠি এক ছাত্রীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পাওয়ায় তাকে মৃদু মারধর করেছেন বলে সাংবাদিকদের কাছে স্বীকার করেন।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান জানান, নির্যাতনের খবর পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে ওই ছাত্রের খোঁজখবর নিয়েছি । ঘটনাটি ওই শিক্ষকের কোচিং ক্লাসে ঘটেছে। তবে এ ঘটনায় অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। বিষয়টিতদন্তে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন