মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি ↪️

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার তুষখালী লঞ্চঘাটে পূর্ব বিরোধের জের ধরে বিবদমান দুই পক্ষে সংঘর্ষেও ঘটনা ঘটেছে। আজ শনিবার সন্ধ্যায় এ সংঘর্ষের সময় মঠবাড়িয়া থানার ওসি কে.এম তারিকুল ইসলামসহ স্থানয়ি ব্যবসায়ি সলিম পঞ্চায়েত আহত হয়েছেন।
হামলায় আহত ব্যবসায়ি সলিম পঞ্চায়েতকে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া হাতে লাঠির আঘাদে আহত থানার ওসি তারিকুল ইসলাম প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। পুলিশ সংঘর্ষে জড়িত ১২জনকে আটক করেছে।
সম্প্রতি তুষখালীর বিএনপি নেতা হাবিব তালুকদার হত্যাকান্ডের ঘটনার জের ধরে বিবদমান দুই পক্ষে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানাগেছে।

এ সংঘর্ষের পর তুষখালীতে পুলিশী টহল জোরদার করা হয়েছে। বর্তমানে সেখানে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।
এ ঘটনায় বিবদমান দুই পক্ষ হতে পরস্পর বিরোধি অভিযোগ করেছেন।

তুষখালী লঞ্চঘাটের ইজারাদার হিমু তালুকদারের জামাতা আহত ব্যবসায়ি সলিম পঞ্চায়েত দাবি করেন, সম্প্রতি নিহত তুষখালী ইউনিয়ন বিএনপি নেতা হাবিব তালুকদারের ছেলে মানিক তালুকদারের নেতৃত্বে তার নিকটজনরা মিলেতাকে ধরে নিয়ে মারধর করে। এসময় পার্শ্ববর্তী হরিণপালা গ্রামের শাহ আলমের ছেলে সুমন তাকে উদ্ধারে এগিয়ে আসলে তাকে ধাওয়া করা হয়।

তবে নিহত বিএনপি নেতা হাবিব তালুকদারের বোন শেফালী বেগম দাবি করেছেন , হরিণপালা গ্রামের শাহ আলমের ছেলে সুমনের নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ একটি দল তুষখালী লঞ্চঘাটে হামলা চালায়। এ সময় তারা কয়েকটি অফিস ও দোকানপাট ভাংচুর করে।

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ কেএম তারিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, পূর্ব বিরোধের জের ধরে বিবদমান দুই পক্ষ সংঘর্ষে লিপ্ত হয় । ঘটনাস্থল হতে ১২জন সংঘর্ষকারীকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় সরকারী কাজে বাঁধাদানসহ এলাকায় বিশৃংখলার অভিযোগে একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। তুষখালীতে পুলিশী টহল জোরদার রয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন