মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি >>

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় সাজেদা বেগম(৫৫)নামে বৃদ্ধা মাকে কোদাল দিয়ে কুপিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে নিজ ছেলে। আজ সোমবার দুপুরে উপজেলার বড়মাছুয়া ইউনিয়নের ভোলমারা গ্রামে এ নির্মম হত্যাকান্ড ঘটে। নিহত বৃদ্ধার বড় ছেলে পাষন্ড আবদুর রহিম খান(৩০) তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে মাকে কুপিয়ে হত্যার পর লাশ বাড়ির পার্শ¦স্থ পুকুরে ফেলে পালিয়ে যায়।
পুলিশ আজ সোমবার সন্ধ্যায় ঘটনাস্থল হতে হতভাগ্য বৃদ্ধা মায়ের লাশ উদ্ধার করেছে। নিহত বৃদ্ধা সাজেদা বেগম ভোলমারা গ্রামের কৃষক জব্বার খানের স্ত্রী । সে তিন ছেলে ও দুই মেয়ের জননী।

নিহত পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, নিহত ওই বৃদ্ধার বড় ছেলে রহিম খানের স্ত্রী ফাতমা আক্তারের সাথে তার শ্বাশুড়ি সাজেদা বেগমের দীর্ঘদিন ধরে নানা তুচ্ছ বিষয় নিয়ে কলহ চলে আসছিল। এ নিয়ে বৃদ্ধা মায়ের ওপর ছেলে রহিম ক্ষুব্দ ছিল। বৃদ্ধার মেঝ ছেলে ঢাকা থেকে কোরবানী কিছু টাকা পাঠায়। ওই টাকা থেকে এক হাজার টাকা বড় ছেলে রহিম মায়ের কাছে দাবি করে। মা তাকে টাকা দিতে অস্বীকার করে । এতে ছেলে রহিম ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। আজ সোমবার মা সাজেদা বেগম বাড়ির কাছে পুকুর পাড়ে ছাগলের জন্য ঘাস কাটতে যায়। এসময় ছেলে রহিম সেখানে গিয়ে টাকার জন্য মায়ের সাথে দুর্ব্যবহার শুরু করে। এনিয়ে মা ছেলের সাথে ঝগড়ার এক পর্যায়” পাষন্ড ছেলে রহিম তার হাতে থাকা কোদাল দিয়ে মাকে নিষ্ঠুরভাবে কুপিয়ে ঘটনাস্থলে হত্যা করে। পরে তার লাশ পুকুরে ফেলে পালিয়ে যায়। প্রতিবেশীরা মিলে পুকুর থেকে নিহত বৃদ্ধা মায়ের লাশ তুলে থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ সন্ধ্যায় ঘটনাস্থল হতে লাশ উদ্ধার করে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. হারুন অর রশীদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, হত্যাকারী ছেলে রহিমের স্ত্রীর সাথে শ্বাশড়ির বিরোধ ছিল। আজ সোমবার ছেলে রহিম মায়ের সাথে টাকা পয়সা নিয়া ঝগড়া করে। একপর্যায় বৃদ্ধা মাকে কোদাল দিয়ে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করে পুকুরে লাশ ফেলে পালিয়ে যায়। মাকে হত্যার পর আবদুর রহিম মায়ের লাশ পুকুরে ফেলে বড় বোন আমেনা আক্তারকে মোবাইল ফোনে জানায়। পরে আমেনা বাড়িতে এসে প্রতিবেশীদের সহায়তায় পুকুর থেকে মায়ের লাশ উত্তোলন করে।
নিষ্ঠুরভাবে মাকে হত্যার ঘটনায় পরিবারে শোকের মাতম চলছে। পুরো গ্রামবাসি এ হত্যাকান্ডে শোকাহত ও মর্মাহত।

মঠবাড়িয়া থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মাজহারুল আমিন হত্যারে ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, নিহতের মুখমন্ডল ও ডান হাতে কোপের জখম রয়েছে। ঘটনাস্থল হতে নিহত বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন