ব্রেকিং নিউজ
Home - মঠবাড়িয়া - মঠবাড়িয়ার দাউদখালীর ফুলতলা নাজুক ব্রিজঃ চলাচলে চরম ভোগান্তিতে পাঁচ গ্রামের মানুষ

মঠবাড়িয়ার দাউদখালীর ফুলতলা নাজুক ব্রিজঃ চলাচলে চরম ভোগান্তিতে পাঁচ গ্রামের মানুষ


মঠবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার দাউদখালী ইউনিয়নের উত্তর দাউদখালী গ্রামের ফুলতলা বেহাল-ব্রিজের কারনে চলাচলে ভোগান্তিতে পরেছে এলাকাবাসী। মঠবাড়িয়া ও পাশবর্তী কাঠালিয়া উপজেলার সংযোগ খালের ব্রীজ দিয়ে ৫ গ্রামের ৫শতাধিক এলাকাবাসীসহ একটি প্রাথমিক ও একটি মাধ্যামিক বিদ্যালয়, একটি নূরানী, ও হাফিজিয়া মাদ্রাসা কোমলমতি শিক্ষার্থী প্রতিদিন জীবনের ঝুঁিক নিয়ে পারাপার করছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে ব্রিজটি উপরের ছাউনি কাঠ দ্বারা নির্মান করা হয়। কিন্তু ব্রীজ নির্মানের একবছর যেতে না যেতেই কাঠগুলো নষ্ট হয়ে যায়। এরপরে স্থানীয় লোকজন নিজস্ব উদ্যোগে লোহার এঙ্গেলের উপরে সুপারিগাছ ও বাঁশ ফেলে চলাচল করতে থাকে। এরমধ্যে গত ঘূর্নিঝড় ফণীর আঘাতে ও জোয়ারের প্রবল স্রোতে কাঠ ও বাঁশ ভেসে যায়। পূণরায় স্থানীয়রা কাঠদিয়ে মেরামত করলেও তা তেমনভাবে চলাচলের উপযোগী হয়নি। এ নাজুক ও ঝুকিপূর্ণ ব্রীজ দিয়ে মঠবাড়িয়ার দাউদখালী ও শিলানিয়া ও মিরুখালী গ্রাম এবং কাঠালিয়া উপজেলার আমুয়া,মরিচবুনিয়া এ পঁাচ গ্রামের মানুষসহ ও চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৫ শতাধীক শিক্ষার্থী প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঝুঁকিপূর্ন এই ব্রিজটি দিয়ে পারাপার হচ্ছে।
দাউদখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ ফজলুল হক খাঁন রাহাত স্থানীয়দের চলাচলে একমাত্র নাজুক ব্রীজের কারণে ৫ গ্রামের মানুষ দীর্ঘদিন যাতায়তে দারুন দূর্ভোগ পোহাচ্ছে স্বীকার করে বলেন-ব্রীজ নির্মানে প্রয়োজনীয় বরাদ্ধ না পাওয়ায় নতুন করে ব্রীজ নির্মান করা যাচ্ছে না। এ বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্যকে অবহিত করেছি\
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উর্মি ভৌমিক বলেন-সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়াম্যান বিষয়টি লিখিত ভাবে জানালে অর্থ যোগান সাপেক্ষে জনগনের দূভোগ লাগবে দ্রুত সময়ের মধ্যে পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

x

Check Also

ভান্ডারিয়ায় দূর্গাপুজা পালন উপলক্ষে প্রস্তুুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত

ভাণ্ডারিয়া প্রতিনিধিঃ ভান্ডারিয়া উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আসন্ন দূর্গাপূজা পালন উপলক্ষে এক প্রস্তুুতিমূলক সভা উপজেলা অডিটরিয়ামে ...