ব্রেকিং নিউজ
Home - উপকূল - প্রকৃতি🌿 বর্ষার দূত কদম

প্রকৃতি🌿 বর্ষার দূত কদম

আজ ১ আষাঢ় । বর্ষা কাল। প্রকৃতিজুড়ে বাদলের গান। বর্ষায় প্রকৃতিতে ফোঁটে নানা ফুল । কদম ফুল আষাঢ়ের ফুল। কদম ফোঁটে বর্ষার দূত হয়ে। কদম সুনন্দ নয়ণাভিরাম ফুল। প্রকৃতি বিমোহিত করে বর্ষায় ফোঁটে কদম। ঢাউশ সবুজ পাতার ডালে ফোঁটা কদম ফুলে মানুষ আকৃষ্ট হয়। আবহমান বাংলার আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার কাছে কদম মুগ্ধতা ছড়ায়। মনোলোভা ফুল এই কদম।

বর্ষাকে স্বাগত জানিয়ে কদম ফুলগানে আর কবিতায় পেয়েছে মোহন রূপ। কদম ফুল প্রিয় বর্ষার আগমনী ফুল। কদমকে তাই বর্ষার দূত বলা হয়। আষাঢ় ঋতুর সঙ্গে কদমের সম্পর্ক নিবিড়। সাধারণত আষাঢ়ের প্রথম বৃষ্টিতেই কদম ফোটে।
গোলাকার সাদা-হলুদ আভার রঙের ফুলটি ছোট বল সদৃশ। গাছ ভরে এই ফুলের সমাহার ।
কদম ফুল নীপ নামেও পরিচিত। এ ছাড়া বৃত্তপুষ্প, মেঘাগমপ্রিয়, কর্ণপূরক, ভৃঙ্গবল্লভ, মঞ্জুকেশিনী, পুলকি, সর্ষপ, ললনাপ্রিয়, সুরভি, সিন্ধুপুষ্পও কদমের নাম। এর আদি নিবাস ভারতের উষ্ণ অঞ্চল, চীন ও মালয়ে। বিশ্বের নানা দেশে কদমগাছ দেখতে পাওয়া যায়। বাংলাদেশ ছাড়াও চীন, ভারত, নেপাল, শ্রীলংকা, কম্বডিয়া, লাওস, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, পাপুয়া নিউগিনি, অস্ট্রেলিয়ায় এই বৃক্ষ রয়েছে।
কদমের বৈজ্ঞানিক নাম Anthocephalus indicus ইংরেজি নাম burflower tree, laran, Leichhardt pine Rubiaceae পরিবারের Neolamarckia গণের বৃক্ষ। যা নীপ নামেও পরিচিত। এ ছাড়া বৃত্তপুষ্প, মেঘাগমপ্রিয়, কর্ণপূরক, ভৃঙ্গবল্লভ, মঞ্জুকেশিনী, পুলকি, সর্ষপ, প্রাবৃষ্য, ললনাপ্রিয়, সুরভি, সিন্ধুপুষ্পও কদমের নাম।

কদমের সংস্কৃত নাম কদম্ব। কদম্ব মানে হলো দযা । মধ্যযুগের বৈষ্ণব সাহিত্য জুড়ে রয়েছে কদমের সুরভী মাখা রাধা-কৃষ্ণের বিরহগাঁথা! ভগবত গীতা থেকে শুরু করে লোকগাঁথা, পল্লীগীতি ও রবীন্দ্র-কাব্য পর্যন্ত কদম ফুলের উল্লেখ রয়েছে। ভানুসিংহের পদাবলি, বৈষ্ণব পদাবলি ও শ্রীকৃষ্ণ কীর্তনে নানাভাবে নানা আঙ্গিকে এসেছে কদম ফুলের বর্ণানা আছে।

কবিতায় কদম ফুল বেশকাব্যিকতা পেয়েছে।
‘চাঁদ উঠেছে ফুল ফুটেছে কদম তলায় কে
/হাতি নাচছে ঘোড়া নাচছে সোনামণির বে’-
কদমগাছ বৌদ্ধধর্মের একটি পবিত্র গাছ। ভারতের পূর্বাংশে ভগবান কৃষ্ণের সঙ্গে জড়িত কদমগাছ। শ্রীকৃষ্ণের লীলাখেলা থেকে শুরু করে রাধা-কৃষ্ণের বিচ্ছেদ- সবকিছুতেই রয়েছে কদম গাছের উল্লেখ আছে। কদম গাছ দীর্ঘাকৃতি এবং বহুশাখাবিশিষ্ট। রূপসী তরুর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে কদম।
কদম গাছের পাতা হয় বড় বড়, ডিম্বাকৃতি, উজ্জ্বল-সবুজ, তেল-চকচকে। এর বোঁটা খুবই ছোট। নিবিড় পত্রবিন্যাসের জন্য কদম ছায়াঘন। এই গাছের উচ্চতা ৪০-৫০ ফুট পর্যন্ত হয়। শীতে কদমের পাতা ঝরে যায় এবং বসন্তে গাছে কচি পাতা গজায়। কদমের কচি পাতার রঙ হালকা সবুজ। কদমের একটি পূর্ণ মঞ্জরিকে সাধারণত একটি ফুল বলেই মনে হয়। কদম ফুল দেখতে বলের মতো গোল, মাংসল পুষ্পাধারে সরু সরু ফুলের বিকীর্ণ বিন্যাস দৃশ্যমান । এই ফুলের রং সাদা-হলুদে। তবে পাপড়ি ঝরে গেলে শুধু হলুদ রঙের গোলাকার বলের মত দেখা যায়।
কদম গাছের ফল মাংসল, টক এবং বাদুড় ও কাঠবিড়ালীর প্রিয় খাদ্য। ফুলে ভরা কদমগাছ দেখতে অসাধারণ হলেও এর আর্থিক মূল্য তেমন একটা নেই। তাই কেউ গুরুত্ব দিয়ে কদম গাছ লাগায় না। প্রাকৃতিকভাবে যে গাছগুলো হয়ে থাকে অনেকে সেগুলোও কেটে ফেলে। কাঠ নরম বলে আসবাবপত্র তৈরি করা যায় না। কাঠ দিয়ে দেয়াশলাই ও বাক্সপেটরা তৈরি হয়ে থাকে। গাছের ছাল জ্বরের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। পাতার রস ছোটদের কৃমির জন্য খাওয়ানো হয়। ছাল ও পাতা ব্যথানাশক। মুখের ঘায়েও পাতার রস কার্যকর।
বাংলাদেশের সব অঞ্চলেই কদম গাছের দেখা মেলে। ‘কদম’ বাংলার সর্বাধিক পরিচিত ফুলের নাম । বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এর প্রকৃতি পর্যায়ের গানে বাদল-দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান/আমি দিতে এসেছি শ্রাবণের গান…
আজও বাংলার বনে বনে বর্ষার বারিধারায় কদম ফুলের রেণু এখনও টিকে আছে। একসময় লোকালয়ের অগভীর বন-বাদাড়ে অঢেল কদম গাছ ছিল। এখন সংখ্যায় কমে গেলেও বর্ষা এলেই কদম গাছের দিকে চোখ না ফেলে উপায় থাকে না। গাছজুড়ে একটা সুষম সমন্বয়ে সবুজ পাতার ফাঁকে ফাঁকে ফুটে থাকে হলদে শরীরে সাদা সাদা বৃষ্টির মতো পাপড়ি নিয়ে বর্ষার কদম। বর্ষা মানেই গুচ্ছ গুচ্ছ কদম ফুলের মিষ্টি সুবাস। বর্ষায় প্রকৃতি যেন সজীব ও সতেজ হয়ে ওঠে । তবে আগের মতোন কদম গাছের দেখা মেলেনা। কদম গাছ তেমন দরকারি মনে না করায় এর কোনও শাখের বনায়ন কিংবা বাণিজ্যিক বনায়ন নেই। উপরন্তু বৃক্ষ উড়ারে ধংস হচ্ছে কদম। ফলে বিশেষ করে বর্ষার প্রকৃতিতে কদম আর আগের মতোন যত্রতত্র মুগ্ধতার রূপ ছড়ায় না।

তবে আজও বর্ষা মানেই কর্দমাক্ত রাস্তা আর গাঁয়ের দূরন্ত ছেলেদের কদম ফুল নিয়ে মুগ্ধ হৈ-হুল্লোড়।

Leave a Reply

x

Check Also

পিরোজপুরে জমি নিয়ে বিরোধে নারী সহ আহত ৫- থানায় অভিযোগ

পিরোজপুর প্রতিনিধিঃঃ পিরোজপুরের নাজিরপুরে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে এক নারী সহ ৫ জন আহত ...