ব্রেকিং নিউজ
Home - অপরাধ - মঠবাড়িয়ায় বাল্যবিয়ের শিকার স্কুলছাত্রীর অস্বাভাবিক মৃত্যু # পরিবারের দাবি হত্যাকাণ্ড

মঠবাড়িয়ায় বাল্যবিয়ের শিকার স্কুলছাত্রীর অস্বাভাবিক মৃত্যু # পরিবারের দাবি হত্যাকাণ্ড

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি :

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় মারিয়া আকতার তন্নী (১৬) নামে বাল্যবিয়ের শিকার দশম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই স্কুল ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়।
নিহত স্কুলছাত্রী উপজেলার ঘোষের টিকিকাটা গ্রামের দুবাই প্রবাসি হাবিবুর রহমানের মেয়ে। সে স্থানীয় কে.এম লতীফ ইনিষ্টিটিউশনে দশম শ্রেণিতে লেখাপড়া কওে আসছিলো।
নিহত স্কুল ছাত্রীর পরিবারের দাবি শ্বশুরবাড়ির লোকজনের নির্যাতনের পর তার শ্বাসরোধ হত্যা করে হত্যাকরা হয়েছে। এঘটনার পর স্কুলছাত্রী ওই গৃহবধূর পলাতক রয়েছেন। তবে পরিবারের অভিযোগের ভিত্তি শ্বশুর-শ্বাশুরি ও ননদকে পুলিশ আটক করেছে।
থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, মঠবাড়িয়ার ঘোষের টিকিকাটা গ্রামের দুবাই প্রবাসি মো. হাবিবুর রহমানের মেয়ে মারিয়া আকতার তন্নী মোবাইল ফোনে শহরের তিন নম্বর ওয়ার্ডের মজিবর রহামন এর ছেলে মিনহাজুর রহমান রাব্বির সাথে পরিচয় ঘটে। পরে তারা গত তিন মাস আগে পালিয়ে ঢাকা চলে যায়। এক পর্যায় তন্নীর পরিবারে চাপের মুখে বাড়িতে ফিরে আসে।

এঘটনার পর স্থানীয় সাবেক দুই পৌর কাঊন্সিলরের মধ্যস্থতায় তাদের বাল্যবিয়ে সম্পন্ন হয়। এ বিয়ের পর স্কুলছাত্রী তন্নী শহরের দক্ষিণ মিঠাখালী তিন নম্বর ওয়ার্ডে স্বামী রাব্বীর পিত্রালয়ে বসবাস শুরু করে। মেয়ে এ ভাবে চলে যাওয়ার বিষয়টি তন্নীর মা মেনে নিতে না পারায় সম্প্রতি সে হার্ট অ্যাটাকে মারা যান। ঘটনার দিন সোমবার সকালে স্কুলছাত্রী তন্নী তার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজনের সাথে কথা কাটি হয়। এর জের ধরে তন্নীর স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন মিলে তাকে মারধরের পর শ্বকাসরোধে হত্যা করে বলে তন্নীর ভাই মেহেদী মুন্না অভিযোগ করেন।

তবে এ ঘটনায় তন্নীর শ্বশুর মো. মজিবর রহমান দাবি করেন, ছেলের স্ত্রী নিজের হাত কেটে ও গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। ওই দিন সন্ধ্যায় তাকে অসুস্থ অবস্থায় আমরা হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তন্নীকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত স্কুল ছাত্রী তন্নীর ভাই মেহেদেী মুন্না অভিযোগ করেন, আমার বোন বাল্যবিয়ের শিকার হয়েছে। এ বিয়েতে আমাদের পরিবারের মত ছিলোনা। ঘটনার আমার বোন মোবাইলে কল দিয়ে আমাকে যেতে বলে । আমি যাওয়ার প্রস্তুতি নিতে নিতে শুনি বোনকে হাসপাতালে ভার্তি করা হয়েছে। তাকে নির্যাতনের পর শ্বাসরোধে হত্যা করেছে শ্বশুর বাড়ির লোকজন। আমারা এর বিচার চাই।

এদিকে এ ঘটনাকে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড দাবি করে নিহত স্কুলছাত্রীর ভাই মেহেদী মুন্না বাদি হয়ে আজ মঙ্গলবার নিহত গৃহবধূর স্বামী, শ্বশুর-শ্বাশড়ি ও ননদকে আসামী করে মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ নিহত গৃহবধূর স্বামী মজিবর রহমান,শ্বাশুড়ি শিরিন বেগম ও ননদ মাকসুদা আক্তারকে আটক করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, হাসপাতাল হতে ওই স্কুলছাত্রী গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় তার পরিবারের পক্ষ হতে হত্যা মামলা দায়ের করলে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। গৃহবধূর স্বামী পলাতক রয়েছে।

 

 

Leave a Reply

x

Check Also

পিরোজপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ প্রতুল ব্রম্মর পরলোকগমন

পিরোজপুর প্রতিনিধি পিরোজপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা, মোর্শেদ স্মৃতি শিশু নিকেতনের অধ্যক্ষ ও এ্যাপেক্সিয়ান প্রতুল ব্রম্ম (৭৭) ...