আল রেযা রায়হান: দক্ষিণ জাপানে রিখটার স্কেলে পর পর কয়েকটি ভূমিকম্পের আঘাতে অনেক বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১৯টি বাড়ি বিধ্বস্তের ঘটনায় অন্তত ২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া অনেকেই আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

ধারণা করা হচ্ছে, হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) বাংলাদেশ সময় রাত ৯টা ৩ মিনিট ৪৭ সেকেন্ডে জাপানের কিয়োশু দ্বীপের পূর্বের কুমামোতো শহরে প্রথম ভূমিকম্পটি আঘাত হানে। এরপর ৫.৭ মাত্রা এবং সব শেষে ৬.৪ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হানে।

ভূমিকম্পের কেন্দ্র ছিল শহরটির ১০ কিলোমিটার গভীরে। এ বিষয়ে ইউএসজিএসের বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, এ ভূমিকম্পটি আঘাত হানার পর ১৬ হাজার বাড়িঘর বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। এ ছাড়া ৩৮ হাজার বাড়িঘরে গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

শহর কর্তৃপক্ষ জানায়, এ ভূমিকম্পে বেশ কিছু ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, এ ভূমিকম্পের ফলে অনেকেই এর নিচে চাপা থাকতে পারেন। এ ঘটনার পর সুনামির কোনো সতকর্তা জারি করা হয়নি।

এ বিষয়ে জাপানের মন্ত্রিপরিষদ সচিব ইয়োসিদি সুগা সংবাদমাধ্যমকে জানান, ইউএসজিএস অনুযায়ী, জাপানের ইউকি শহরের কাছে রিখটার স্কেলে ৬.২ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। এরপর আরো কয়েকটি ভূমিকম্প আঘাত হানে।

জাপানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন এনএইচকে জানায়, ভূমিকম্পের পর মাসিকি শহরের কয়েকটি স্থানে আগুন জ্বলতে দেখা গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, গ্যাসের সংযোগ কিংবা শর্টসার্কিট থেকে এ ঘটনা ঘটতে পারে।

অপরদিকে, জাপানের কুয়ামোতো দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ জানায়, বাড়ি বিধ্বস্তের ঘটনায় একজন এবং অন্যজন আগুনে পুড়ে মারা গেছেন।

দ্য ন্যাশনাল পলিসি এজেন্সি জানায়, ভূমিকম্পে ১২ জন আহত হয়েছেন।

জাপান মেট্রোলজিক্যাল এজেন্সির ভূমিকম্প শাখা জানিয়েছে, বৃহস্পতিবারের ভূমিকম্পের পর আগামী সপ্তাহে ভূমিকম্প পরবর্তী হিসেবে আরো কয়েকটি ভূমিকম্প আঘাত হানতে পারে।

মার্কিন জিওলজিক্যাল সার্ভে (ইউএসজিএস) জানায়, বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা ১৭ মিনিটে জাপানের ভানুতু শহরের ১০ কিলোমিটার গভীরে রিখটার স্কেলে ৬ মাত্রার, সন্ধ্যা ৬টা ২৬ মিনিটে কিয়োশু শহরের ১০ কিলোমিটার গভীরে এবং রাত ৯টা ৩ মিনিটে কিয়োশু শহরের ১০ কিলোমিটার গভীরে ৬ মাত্রার আরো একটি ভূমিকম্প আঘাত হানে।

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন