কাউখালী প্রতিনিধি >

পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার শীর্ষা গ্রামের মেধাবী এ ছাত্রী  ও লেখিকা অাফরোজা মুন্নি দুরারোগ্য রোগে অাক্রান্ত। ২০১২ সালে ব্রেইন টিউমারের অপারেশন  হয় তার । কিন্তু পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ওঠা অার হয়নি তার। একের পর এক নানা রোগ ব্যাধিতে অাক্রান্ত হতে থাকেন মুন্নি। তার চিকিৎসা করতে দরিদ্র পরিবার এখন নিঃস্ব। চিকিৎসার খরচ যোগাতে কলম ধরলেন মুন্নি। এরই মধ্যে প্রকাশিত হয়েছে তার লেখা দুটি বই। অসুস্থ এ লেখিকার প্রিকাশিত দুটি বই ফেরী করে মানুষের দ্বারে দ্বারে অনন্য দৃষ্টান্ত দেখিয়েছেন কাউখালীর সমাজসেবক আব্দুল লতিফ খসরু। তিনি এ বই বিক্রি করে সেই টাকা লেখিকার হাতে তুলে দিচ্ছেন। এতে কিছুটা হলেও অসুস্থ লেখিকা তার চিকিৎসার খরচ মেটাতে পারছেন।

কাউখালী উপজেলার এক নম্বর সয়না রঘুনাথপুর ইউনিয়নের ছোট একটি গ্রাম শীর্ষায় জন্ম মুন্নির। বাব একে এম মনিরুজ্জামান, পেশায় ক্ষুদ্র কাঠ ব্যবসায়ী ছিলেন। বাবার পেশার কারনেই ঢাকায় বসবাস তার। চার ভাই বোনের মধ্যে মুন্নি বড়। ১৯৯৭ সালে কুর্মিটোলা হাই স্কুল থেকে এস এস সি, ২০০০ সালে ঢাকা তিতুমির কলেজ থেকে এইচ এস সি এবং ২০০৬ সালে ডিগ্রী পাশ করেন মুন্নি। অার্থিক অসচ্ছলতার কারণে বারবার লেখাপড়ায় ভাটা পরে তার। এরই মধ্যে শিখে নেন কম্পিউটার। মহাখালীর একটি অাউটসোর্সিং কম্পানিতে কাজ নেন মুন্নি। অসুস্থতার কারণে চাকরি ছেড়ে দিতে হয়। ব্রেইন টিউমার অপারেশনের পর ২০১৩ সালে আবার অসুস্থ হয়ে পরেন মুন্নি। শরীরে ব্লাড কমে যাওয়া সহ নানা জটিলতা দেখা দেয়। চিকিৎসকের পরামর্শে রেডিও থেরাপি দিতে হয়। প্রতি মাসে প্রায় ১২,০০০ টাকার ওষুধ সেবন করতে হয় মুন্নিকে। ধার দেনা করে এরই মধ্যে প্রকাশ করেন দুই খন্ডের জীবন ভিত্তিক উপন্যাস “ধূসরকন্যা”। ছিটমহলের উপর লেখা দুটি পান্ডুলিপি থাকলেও টাকার অভাবে তা বই অাকারে প্রকাশ করতে পারছেন না। এরই ফাকে মুন্নি বাংলায় এম এ পড়া শুরু করেছেন। ভর্তি হয়েছেন উইমেন মহিলা কলেজে। বর্তমানে মুন্নি অসুস্থ।

উদ্যোক্তা আবদুল লতিফ খসরু বলেন, অসুস্থ লেখিকা মুন্নিকে সহায়তা দিতে ও মুন্নির মুখে হাসি ফোটাতে ওর লেখা বই ফেরি করছি। উপজেলার নিভৃত প্রান্ত থেকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বই প্রেমী মানুষদের কাছে  বই বিক্রি শুরু করেছি। অার বই বিক্রিত অর্থ তুলে দিব মুন্নির হাতে চিকিৎসার সহায়তার জন্য। এখন ওর প্রয়োজন উন্নত চিকিৎসা ও কর্মসংস্থানের। অামি ক্ষুদ্র উদ্যোগ নিয়েছি। হয়ত কেউ বড় উদ্যোগ নিবেন। তবে, বই বিক্রির এই অর্থে ওর কিছুটা হলেও সহায়তা হবে চিকিৎসায়। কিন্তু উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন সমাজের বিত্তবান ব্যক্তি , প্রতিষ্ঠান, প্রশাসনের এগিয়ে অাসা। কোন কিছু চাওয়া কিংবা পাওয়ার জন্য অামি এই উদ্যোগটি নেইনি। মানুষ হিসেবে গভীর এক দায়বোধ থেকে এ কাজটি করা। অাসুন অামরা সবাই মিলে মানুষ মানুষের জন্য এ ব্রত নিয়ে যার যার অবস্থান থেকে অসুস্থ মেধাবী অাফরোজা মুন্নিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সহায়তা করি। অার অাপনার সহায়তাই পারে মুন্নিকে সুস্থ রাখতে। সুস্থ রাখার মালিক আল্লাহ্‌। অামরা ওর জন্য দোয়া করি। অাল্লাহ যেন ওকে সুস্থ করে দেন। ব্যবস্থা করে দেন উন্নত চিকিৎসার।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন