সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক >>
পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার কৃতি সন্তান ও টিভি অভিনেতা শওকত সজল এবার ঈদে বেশ কয়েকটি মেগা ধারাহিক টিভি নাটকে অভিনয় করেছেন। প্রতিশ্রুতিশীল নাট্য অভিনেতা শওকত সজল চাকুরির পাশাপাশি নিয়মিত অভিনয়ে মনোনিবেশ করেছেন। এ অভিনেতার বেশ কিছু টিভি নাটক ইতিমিধ্যে প্রচারিত হয়েছে যাতে তিনি মননশীল অভিনয়ের সাক্ষর রেখেছেন। বৈশাখী টিভিতে ফরিদুল হাসানের মেগা ধারাবাহিক কমেডি-৪২০ শওকত সজল অভিনয় করছেন।

এবারের ঈদুল আজহায় বিভিন্ন চ্যানেলে অভিনেতা শওকত সজল অভিনীত ৫টি নাটক প্রচারিত হচ্ছে। এর মধ্যে আজাদ কালাম পরিচালিত জমজ নাট উল্লেখযোগ্য। আরটিভির ধারাবাহিক নাটক গাঁয়ের মানুষ এ বিশেষ চরিত্র হুদা মাস্টার এর চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। চ্যানেল আই এ ফরিদুল হাসানের মেগা ধারাবাহিক বাসন্তিপুর নাটতে তিনি আলোচিত দরবেশ চরিত্রে অভিনয় করছেন। সদ্য প্রয়াত পরিচালক আরিফ আল মামুনের বিটিভিতে প্রচারিত ধারাবাহিক নাটক নতুন দিনের আহ্বানে পাগলের চরিত্রে াভিনয় করছেন শওকত সজল।
এছাড়াও রঙের মধুপুর ধারাবাহিক নাটকে রশিদের চরিত্র ও ১২ সেপ্টেম্বর থেকে প্রচারের অপেক্ষায় বৈশাখী টিভিতে মেগা ধারাবাহিক (প্রতি মঙ্গলবার,বুধবার ও বৃহস্পতিবার) আনলিমিটেড নয় ছয় নাটকে াভিনয় করেছেন। আনলিমিটেড নয় ছয় নাটকে কমেডি উকিল এর বিশেষ সহকারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন। নাটকটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন এসএম দুলাল।
এস এম দুলালের পরিচালনায় মেগা ধারাবাহিক জিরো কিলোমিটার নাটকে অভিনেতা শওকত সজল মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করছেন। নাটকটি চলতি সপ্তাহে শুটিং শুরু হবে।

প্রতিশ্রতিশী এ কৃতি অভিনেতা শওকত সজল এ প্রতিনিধিকে জানান, তিনি নাটকে অভিনয়ের মাধ্যমে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি নানা সামাজিক কর্মকান্ডে নিজেকে ব্যস্ত রাখতে চান।

জানাগেছে, কৃতি এ অেিনতার বাড়ি পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌর শহরের দক্ষিণ বন্দর মহল্লায়। তারা বাবা আব্দুল আজিজ কন্ট্রাকটর। তিন ভাই বোনের মধ্যে শওকত সজল সবার ছোট।
শওকত সজল ১৯৭৭ সালে ৯ নভেম্বর মঠবাড়িয়ায় জন্ম গ্রহণ করেন। সে ঐতিহ্যবাহী কেএম লতিফ ইনস্টিটিউশন থেকে ১৯৯৩ সালে এসএসসি পাশ করেন। বরিশাল বিএম কলেজ হতে ১৯৯৫ সালে এইচএসসি ও জগন্নাথ বিশ্ব বিদ্যালয় হতে ম্যানেজমেন্ট এ অনার্স ও মাস্টার ডিগ্রী অর্জন করেন।
দুই সন্তানের জনক শওকত সজল ২০০৫ সালে জনশক্তি,কর্মসংস্থান ও প্রবাসি কল্যাণ ব্যুরো এ কল্যাণ কর্মকর্তা হিসেবে চাকুরিতে যোগ দেন। ২০১২ সালে তিনি কুয়েত দূতাবাসে প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে বদলী হন। কুয়েতে তিনি ৪ বছর চাকুরি করেন। সেখানে তিনি মঞ্চ ও টিভিতে অভিনয় করে প্রশংসিত হন। পরে তিনি ২০১৬ সালে ওয়েজ অর্নার্স কল্যাণ বোর্ড প্রবাসি কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে যোগদান করেন।

চাকুরির পাশাপাশি তিনি ১৯৯৭ সালে মনন থিয়েটারের মাধ্যমে অনিয় ও থিয়েটার আন্েদালনের সাথে যুক্ত হন। ২০০৫ সাল থেকে তিনি মনন থিয়েটারের সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ২০০৫ সালে তিনি পরিচালক আশরাফি মিঠুর ভালবাসা নাটকে ও মতিন রহমানের মোহনপুরের মনখুশি নাটকে অভিনয় করেন। তিনি ৩০টি টিভি নাটকে অভিনয় করে নিজেকে দক্ষ অভিনেতা হিসেবে গড়ে তুলতে সচেষ্ট হন। তিনি নিজেকে নাটকে প্রতিষ্ঠিত করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি তার সফলতার জন্য প্রিয় মঠবাড়িয়াবাসীসহ দেশে টিভি দর্শকদের দোয়া কামনা করছেন।

অভিনেতা শওকত সজল বলেন, মানুষকে সচেতন ও মানুষের মূল্যবোধের জীবনবোধ তৈরীতে নাটক একটি শক্তিশালী মাধ্যম। নাটক একটি ঐক্যবদ্ধ সমাজ জীবনের আপন সংস্কৃতির ধারক ও বাহক। আমাদের সাংস্কৃতিক বিপ্লবকে বাঁচিয়ে রাখছে নাটক। তিনি আরও বলেন, জীবনের শেষ সময়টুকু নাটকেই থাকতে চাই। শিল্পের সাধনা ও শিক্ষা কখনও শেষ হওয়ার নয়।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন