মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি >>
পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় সুখী আক্তার(১৮)নামে সদ্য বিবাহিত এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ শনিবার সন্ধ্যায় মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হতে পুলিশ ওই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে। স্বামীর সাথে কলহের জের ধরে ক্ষুব্দ হয়ে সে কীটনাশক পান করে আত্মহত্যা করেছে বলে পরিবারের সদস্যরা দাবি করেছেন।
নিহত গৃহবধূ সুখী উপজেলার তুষখালী ইউনিয়নের শাখারীকাঠি গ্রামের মো. শহীদুল সরদারের মেয়ে ও ধানীসাফার মুসল্লীবাড়ি গ্রামের মো. সেলিম হাওলাদারের স্ত্রী।
থানা ও হাসপাতাল সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার ধানীসাফা ইউনিয়নের মুসল্লীবাড়ি গ্রামের খালেক হাওলাদারের ছেলে মো. সেলিম হাওলাদারের সাথে তুষাখালী ইউনিয়নের শাখারীকাঠি গ্রামের মো. শহীদুল সরদারের মেয়ে সুখী আক্তারের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে সুকী বাবার বাড়িতে অবস্থান করে আসছিল। বিয়ের দুই মাস পর সুখীকে শ্বশুর বাড়িতে তুলে দেয়ার কথা উঠলে সুখীর স্বামী সেলিম মোটা অংকের যৌতুক দাবি করে । এ নিয়ে ওই দম্পতির মধ্যে কলহের সৃষ্টি হয়। এছাড়া সুখী জানতে পারে তার স্বামী এর আগেও একটা বিয়ে করেছিল যা সুখীর পরিবারকে গোপন রাখা হয়। এ নিয়ে দুই পরিবারে বিবাদ সৃষ্টি হলে গৃহবধূ সুখী মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। আজ শনিবার সকালে সুখী বাবার বাড়ি থেকে ঈদের কেনাকাটা করতে মঠবাড়িয়া শহরে আসার পর দুপুরে বাড়ি ফিরে ঘরে রক্ষিত কীটনাশক পান করে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরিবারের স্বজনরা বিকালে আশংকাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে চিকিতসাধিন অবস্থায় সন্ধ্যা ছয়টার দিকে সুখী মারা যায়। খবর পেয়ে পুলিশ হাসপাতাল হতে তার লাশ উদ্ধার করে।
এ ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ কে.এম তারিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, নিহত ওই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আগামীকাল রবিবার লাশের ময়নাতদন্তের জন্য জেলা মর্গে পাঠানো হবে। এ ঘটনায় মঠবাড়িয়া থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন