মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি >>
পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় দুলালী রানী মিস্ত্রী (২২)নামে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছেছে পুলিশ। আজ সোমবার সকালে মঠবাড়িয়া উপজেলার টিকিকাটা ইউনিয়নের ছোট শিংগা গ্রামে স্বামীর বসত ঘর হতে ওই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত ওই গৃহবধূ ছোট শিংগা গ্রামের মাখম চন্দ্র মিস্ত্রীর ছেলে রিপন মিস্ত্রীর স্ত্রী। স্বামী রিপন পেশায় কাঠ মিস্ত্রী । নিহত গৃহবধূর কলি নামে পাঁচ বছর বয়সী মেয়ে ও হৃদয় নামে তিন বছর বয়সী একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।
নিহত গৃহবধূর স্বামী রিপন মিস্ত্রীর দাবি তার স্ত্রী গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্য করেছে। তবে এলকাবাসি সূত্রে জানাগেছে দীর্ঘদিন ধরে ওই গৃহবধূর ওপর স্বামী রিপন শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়ে আসছিল।
থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার টিকিকাটা ইউনিয়নের ছোট শিংগা গ্রামের মাখম চন্দ্র মিস্ত্রীর ছেলে রিপন মিস্ত্রীর সাথে গত নয় বছর আগে উপজেলার বেতমোর ইউনিয়নের শীতলপুর গ্রামের নারায়ণ মন্ডলের মেয়ে দুলালী রানীর পারিবারিক সম্মতিতে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে স্বামী রিপন মিস্ত্রী পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। এ পরকীয়ার জের ধরে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে দাম্পত্য কলহ চলে আসছিল। প্রায়ই ওই গৃহবধূ স্বামীর মারধরের শিকার হন।

স্বামী রিপন দাবি করে রবিবার স্ত্রীর সারেথ তাঁর কথার কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে স্ত্রী দুলালী রবিবার দিবাগত গভীর রাতে ঘরের আড়ার সাথে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।

এ ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানার উপ পরিদর্শক মো. আকরাম হোসেন সাংবাদিকদের জানান, গ্রামবাসিদের মাধ্যমে খবর পেয়ে ওই গৃহবধূর লাশ স্বামীর বসতঘরের মেঝে থেকে উদ্ধার করা হয়ে। তার গলায় আঘাতের আলামত রয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। লাশ ময়নাতদন্তে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন