কাউখালী প্রতিনিধি >>

পিরোজপুর কাউখালীতে রাঁস পূর্ণিমায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের গুরু শ্রীশ্রীমদ্ দূর্গাপ্রসন্ন পরমহংসদেব এর ১২৭ তম আবির্ভাব উপলক্ষে পাঁচ দিনব্যাপী রাস উৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
শ্রীগুরু সংঘ বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় আশ্রমের আয়োজনে আজ শনিবার শুরু থেকে এ রাস উৎসব হয়েছে। হাজার হাজার ভক্তবৃন্দের অংশ গ্রহণে সংঘ পতাকা উত্তোলন শেষে একটি বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা আশ্রম প্রাঙ্গন থেকে বের হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে । মঙ্গল শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেন আশ্রমের কেন্দ্রীয় সভাপতি স্বামী জগন্নাথানন্দ সরস্বতী, সাধারণ সম্পাদক রনঞ্জয় কৃষ্ণ দত্ত, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান মিঠু, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান পল্টন, সদও ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুর রশীদ মিল্টন, কোষাধ্যক্ষ বিপুল কৃষ্ণ ঘোষ ও শোভাযাত্রা উপকমিটির আহবায়ক মানিক লাল কর প্রমুখ।

স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, আশ্রম প্রাঙ্গনে বিশাল এলাকা জুড়ে বসেছে রঁস মেলা। নাগরদোলাসহ রকমারি জিনিসের পসরা সাজিয়েছে দোকানিরা। পাহাড়ী কাঠের নকশায় গড়া আকর্ষনীয় আসবাবপত্র নিয়ে দূর দূরান্ত থেকে দোকানীরা এসেছে এই মেলায়। শীতের গরম কাপড়, শিশুদের বিনোদনেরও অনেক খেলনা সামগ্রীতে জমে উঠেছে এ উৎসব অঙ্গন । প্রতিবছর রাসপূর্ণিমায় এ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

উৎসবের প্রচার, তথ্য ও অনুসন্ধান উপকমিটির যুগ্ম আহবায়ক সুব্রত রায় জানান, বিশ^ চরাচরের দু:খ বিমোচন, অধর্মের গ্লাণি থেকে রক্ষা ও ধর্ম সংস্থাপণার্থে বিশ^ শান্তি কামনায় ৫ দিন ব্যাপী এ উৎসবে ২৪ প্রহরব্যাপী তারকব্রহ্ম মহানাম সংকীর্ত্তন অনুষ্ঠিত হবে। এতে সারা দেশের ভক্তবৃন্দসহ জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে প্রায় লক্ষাদিক ভক্ত ও পূন্যার্থীর সমাগম ঘটবে এখানে। পাশর্^বর্তী দেশ ভারত, নেপাল ও শ্রীলংকা থেকেও ভক্তবৃন্দ এ অনুষ্ঠানে সমবেত হবেন।
পাঁচ দিনের উৎসবে মংগল আরতি, শ্রীমদ্ভাগবদ গীতা ও গুরুগীতা পাঠ, বস্ত্র বিতরণ, শিক্ষা উপকরন বিতরণ, সরকারি হাসপাতালে দু:স্থ রোগীদের মধ্যে ফল বিতরণ, সান্ধ্যকালীন প্রর্থনা, ধর্ম সভা ও গীতি আলেখ্য ইত্যাদি। ২৮ নভেম্বর সমাপনী দিনে গুরুপূজা শেষে মহাপ্রসাদ বিতরণের মধ্য দিয়ে এ উৎসবের সমাপ্তি ঘটবে।

তিনি আরও জানান, এ আশ্রমের সেবামূলক অনেক কার্যক্রম রয়েছে। এর মধ্যে মন্দিরভিত্তিক প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা, দাতব্য চিকিৎসালয়ের মাধ্যমে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবাদান, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দারা বিনামূল্যে বিশেষ চক্ষু চিকিৎসা শিবির পরিচালনা, সুরেন্দ্রনাথ দে স্মৃতি পাঠাগার পরিচালনা ও দৈনিক দরিদ্র নারায়ন সেবা অন্যতম। কাউখালীর কেন্দ্রীয় আশ্রমের এ উৎসব এখন ঐতিহ্যের উৎসব হিসেবে টিকে আছে।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন