দেবদাস মজুমদার <>

আমাদের যাকে যাকে প্রয়োজন তারাই পালায় ,
দুরের সমুদ্রে যায় ..
– পূর্ণেন্দু পত্রী ।


সারাজীবন জীবনঘনিষ্ঠ সিনেমার জন্য লড়ে গেছেন তিনি। তিনি ছিলেন সিনেমার ফেরিওয়ালা আর স্যালুলয়েডের কবি। তিনি বর্ণিল বরেণ্য ও বর্ণাঢ্য চলচ্চিত্রকার প্রয়াত তারেক মাসুদ।
মুক্তির গান, মুক্তির কথা, আদম সুরত, মাটির ময়না, অন্তর্যাত্রা ও রানওয়ে-এর মতো ছবি নির্মাণের মাধ্যমে তারেক মাসুদ বাংলা চলচ্চিত্রে অনন্য নতুন ধারার সূচনা করেছিলেন। প্রথম বাংলাদেশি চলচ্চিত্র হিসেবে অস্কারে স্থান পেয়েছিল তার ‘মাটির ময়না’।
বিশেষ করে আগামী দিনের তরুণ নির্মাতাদের কাছে তারেক মাসুদ আজও মহতী স্বপ্নের নাম।
গুণি এ নির্মাতা ২০১১ সালের ১৩ আগস্ট মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু ঘটে। একই দিনে দুর্ঘটনায় তাঁর সঙ্গে ছিলেন দীর্ঘদিনের সহকর্মী বাংলাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ সাংবাদিক ও চিত্রগ্রাহক মিশুক মুনীর। তাদের দুইজন ছাড়াও আরো ৩ জনের মৃত্যু ঘটে। এত গুণি মানুষের অকাল প্রয়াণে আমাদের অগ্রগামী নতুন ধারার চলচ্চিত্র আজও এক মহাসংকটে পড়ে।
তারেক মাসুদ শুধু একজন সিনেমার কারিগরই নন, সিনেমার ফেরিওয়ালাও। জীবনের রং, গল্প জেনে বুঝে তিনি সিনেমা বানাতেন। আবার সেই সিনেমা সবাইকে দেখানোর জন্য ছুটে বেড়াতেন দেশের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত, কখনোবা দেশের সীমানা ছাড়িয়ে বাইরে। এক কথায় তিনি ছিলেন এ-অঞ্চলের ইতিহাস-ঐতিহ্যের সুতা ধরে নেমে আসা এক বায়োস্কোপওয়ালা।
দেশে তিনিই প্রথম স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র আন্দোলনের সূচনা করেন।
ফরিদপুর জেলার নূরপুর গ্রামে ১৯৫৭ সালের ৬ই ডিসেম্বর তারেক মাসুদের জন্ম। তাঁর ছাত্রজীবনের শুরুটা হয়েছিল মাদ্রাসায় ইসলামী শিক্ষালাভের মধ্য দিয়ে। ’৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে তার পড়াশোনায় ছেদ পড়ায় ঢাকা এসে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে এরপর নটরডেম কলেজ থেকে মানবিক বিভাগে এইচএসসি পাস করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে ভর্তি হওয়ার পরেই তিনি চলচ্চিত্র আন্দোলনের সাথে জড়িয়ে পড়েন এবং চলচ্চিত্রের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠেন।
এ গুণি চলচ্চিত্র নির্মাতার অকাল মৃত্যুতে আমাদের সুস্থধারা চলচ্চিত্রের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেছে। কেননা দেশের তরুণ-বৃদ্ধ সবার আত্মার মুক্তি ঘটবে এমনটাই ভেবেছিলেন তিনি। শিল্পসত্ত্বার দায়বদ্ধতা সাথে নিয়ে বাংলা চলচ্চিত্রকে বিশ্ব দরবারে একটা উচ্চ স্থান দেওয়ার জন্য আমৃত্যু কাজ করে গেছেন সেলুলয়েডের এই গুণি নির্মাতা।।
আজ ১৩ আগস্ট তার প্রয়াণের ৮বছর । বর্ণিল, বর্ণাঢ্য ও বরেণ্য চলচ্চিত্রকার প্রয়াত তারেক মাসুদকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন