ঢাকা: পৌরসভা নির্বাচন সকাল থেকে এখন পর্যন্ত সুন্দর, সুষ্ঠু ও উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হচ্ছে জানিয়ে কিছু কিছু জায়গায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বাড়াবাড়ি করছে বলে অভিযোগ করেছেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম।

বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) দুপুর সোয়া ১২টায় নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে ৩ জন নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বের হয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

এইচ টি ইমাম বলেন, ‘চৌমুহনী, পাথারঘাটা, গাইবান্ধার বেশ কিছু জায়গায়, পাবনার চাটমোহর এলাকায় আমাদের নেতাকর্মী ও প্রার্থীদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বাড়াবাড়ি করেছে। এসব স্থানে বিএনপি-জামায়াতের আধিপত্য থাকায় অনেক জায়গায় তাদের কর্মীরা আমাদের প্রার্থীদের বের করে দিচ্ছে। কিন্তু পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।’

‘কারো ব্যর্থতা নয়, এসব বিচ্ছিন্ন ঘটনা কারো কারো বাড়াবাড়ির কারণে হচ্ছে’ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

অনেক এলাকায় আইনশৃঙখলা বাহিনী ও ম্যাজিস্ট্রেটরা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে ভালো ব্যবহার করছে না বলে অভিযোগ করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘অথচ পুলিশ, ম্যাজিস্ট্রেট ও আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সমতা ও সবার সাথে জিরো টলারেন্সে কাজ করার কথা ছিল। কিন্তু তারা চাটমোহরে আমাদের অনেক বৃদ্ধ নেতাকর্মীকে হেনস্তা করেছে। তাদের বাড়ি-ঘরে রাতে রেট দিয়েছে বলেও শুনেছি।’

বিএনপির অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বিএনপির নেতারা, যারা ইসিতে এসেছিলেন, তারা অনেক কাল্পনিক অভিযোগ করেছে। আমরা ভালোভাবে খোঁজখবর নিয়ে বস্তুনিষ্ঠ খবর নিয়ে কমিশনারদের জানিয়েছি।’

পরাজয় নিশ্চিত জেনে বিএনপির অনেক প্রার্থী নিজেরাই গুম হয়ে যাচ্ছেন। আর বিএনপি এ বিষয়ে গুম হওয়ার গালগল্প দিয়ে যাচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘নির্বাচনকে প্রভাবিত করার জন্য শুনেছি অনেকে টাকা খরচ করে লাঠিয়াল বাহিনী ভাড়া করে ভোটারদের বাধা দিচ্ছে। নির্বাচনকে বানচাল করে সরকারকে বিব্রতকর অবস্থায় ফেলার চেষ্টা চলছে।’

এইচ টি ইমাম বলেন, ‘৩ হাজার ৫৫৫টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে এখন পর্যন্ত ১৪ কেন্দ্রের ভোট স্থগিত হয়েছে। শতকরা হিসেবে এটা খুবই কম, যা নির্বাচনকে প্রভাবিত করে না।’

এ সময় তিনি জামায়াতকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘জামায়াত তো নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারছে না। তাই ধানের শীষের জন্য সর্বশক্তি প্রয়োগ করছে।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন