মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি >>

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে আপন চাচাতো দুই ভাইয়ের মধ্যে সংঘর্ষে দুই পক্ষের নারীসহ ৬ জন আহত হয়েছে। গরুতে কুমড়া গাছ খাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষে ঝগড়াঝাটির এক পর্যায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।শুক্রবার বিকেলে উপজেলার বুখইতলা বান্ধবপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। আহতদের শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা হল, কলেজ ছাত্র আবুল বাশার (১৮), ছোট ভাই ব্যবসায়ী কবির হোসেন (৩৫), স্ত্রী মাহমুদা বেগম (৪০), ও মেয়ে আল্লাদি (২৫)। অপর পক্ষে খলিলের ভাতিজা মাদ্রাসা ছাত্র ফরিদ (১৭) ও আফজালের পুত্র সবুজ (১৬)।

স্থানীয় সূত্রে জানাগছে, ওই গ্রামের মৃত আব্দুস ছত্তার হাওলদার এর ছেলে ও মালয়েশিয়া প্রবাসী ইউসুফ হাওলাদারের (৪৫) সাথে আপন চাচাতো ভাই রুস্তুম হাওলাদারের পুত্র আব্দুল খলিলের (৪০) দীর্ঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে দু’পক্ষের আদালতে মামলাও বিচারাধীন। শুক্রবার বিকেলে ইউসুফের ছোট ভাই ব্যবসায়ী কবির এর গাভী গরুতে খলিলের ছোট ভাই হাবিবের কুমড়া গাছ খাওয়ার অপরাধে ফরিদ, মনির, রুবেল ও সবুজ গরু বেধে বেধরক মারধর করে। এ নিয়ে দু’পক্ষ সংঘর্ষ জড়িয়ে পরে। এ সময় ই¦উসুফের মেয়ে আল্লাদি ছোট ভাই বাশার ও মা মাহমুদা বেগমের আহতের খবর শুনে হাসপাতালে আসার পথে খলিলের ভাই হাবিব ও তার দলবল পুনঃরায় পথিমধ্যে আটকিয়ে আল্লাদীকে পিটিয়ে আহত করে এবং তার কোলে থাকা দুই বছরের শিশু মিমকে আছাড় দিয়ে রাস্তায় ফেলে দেয়। এদিকে ইউসুফের স্ত্রী মাহমুদা বেগমের অবস্থার অবনতি ঘটলে আজ শনিবার বিকেলে বরিশাল েেশরে বাংলা মেডিকেল করেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

স্থানীয় ইউপি সদস্য গোলাম মোস্তফা জানান, দ’ুপক্ষের মধ্যে ১৩ শতাংশ জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। উভয় পক্ষের মধ্যে একাধিক মামলাও রয়েছে।

মঠবাড়িয়া থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই বিপ্লব জানান, গাভীতে গাছ খাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষই থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন