পিরোজপুর প্রতিনিধি >>
পিরোজপুরে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনয়ন না পেয়েও প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মহাজোট প্রার্থীকে জয়ী করার লক্ষ্যে ব্যাপক কাজ করছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও পিরোজপুর জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ইসহাক আলী খান পান্না।
পিরোজপুর-১ (পিরোজপুর-সদর, নাজিরপুর ও নেছারাবদ) এবং পিরোজপুর-২ (কাউখালী, ভান্ডারিয়া ও ইন্দুরকানী) এ দুটি আসনেই ইসহাক আলী খান পান্না আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, শ্রমীকলীগ ও যুবমহিলা লীগসহ সকল অঙ্গসংগঠনের নেতা কর্মীদের নিয়ে শহর-গ্রাম-গঞ্জে নিবর্চনী জনসভা, গণসংযোগ, লিফলেট বিতরণ করেছেন। পিরোজপুর-১ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীয়ত প্রার্থী আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট শ.ম রেজাউল করিমকে নৌকা মার্কা বিজয়ী করতে সকল নির্বাচনী জনসভায় নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে শক্রিয় ভাবে উপস্থিত থেকে সকলকে নৌকা মার্কায় ভোট দেয়ার আহ্বান জানান এবং প্রতিটি জনসভায় আওয়ামীলীগ সরকারের উন্নয়ন জনসাধারনের মাঝে বক্তব্যে তুলে ধরেন আওয়ামীলীগে কেন্দ্রীয় নেতা ইসহাক আলী খান পান্না।
পিরোজপুর-২ আসনে মহাজোটের প্রার্থী জাতীয় পার্টি জেপি’র চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জুকে সাইকেল মার্কায় বিজীয় করতেও সকল নির্বাচনী জনসভায় নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে শক্রিয় ভাবে উপস্থিত থেকে সকলকে নৌকা মার্কায় ভোট দেয়ার আহ্বান জানান এবং প্রতিটি জনসাধারনের মাঝে বক্তব্যে তুলে ধরেন আওয়ামীলীগে কেন্দ্রীয় নেতা ইসহাক আলী খান পান্না।
এর আগেও ইসহাক আলী খান পান্না আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়েও কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জোটগত কারনে নির্বাচন থেকে সরে দাড়ান। ইসহাক আলী খান পান্না আওয়ামীলীগের কেন্দ্রের সকল সিদ্ধান্ত মেনেই এ জনপথে রাজনীতি করে আসছেন।

এছাড়া মনোনায়ন না পেয়ে পিরোজপুর বাসীর কাছে খোলা চিঠি লিখেন ইসহাক আলী খান পান্না। এতে তিনি উল্লেখ করেন, আপনাদের সাথে দীর্ঘ পথপরিক্রমায় যে গভীর ভালবাসার বন্ধনে আপনারা আমাকে আবদ্ধ করেছেন,পিরোজপুরের প্রতিটি মানুষ হৃদয়ের গভীরে আমাকে যে স্থান দিয়েছেন তার জন্য আমি সত্যিই কৃতজ্ঞ ও সৌভাগ্যবান।
আপনাদের এই অকৃত্রিম ভালবাসা ও আকুণ্ঠ সমর্থণ আমাকে শিখিয়েছে পিরোজপুরের প্রতিটি গ্রামই আমার গ্রাম আমার অস্তিত্বের শেঁকড়। আমি সর্বাত্রক চেষ্টা করেছি পিরোজপুরের প্রতিটি প্রান্তে গিয়ে জনগনের সাথে সম্পৃক্ত থেকে তাদের সমস্যা ও সম্ভাবনার কথা শোনার এবং প্রয়োজনে জনগনের পাশে থেকে তাদের মুখে হাসি ফোঁটানোর। আপনাদের হাসিমুখ আমার জীবনকে অর্থবহ করে তোলে তাই বারেবারে ছুটে যাই আপনাদের কাছে ছেলে, ভাই, বন্ধু হিসেবে।
পিরোজপুরের অধিকাংশ মানুষ যারা আমাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখেছেন, আকুণ্ঠ সমর্থন দিয়ে পাশে ছিলেন, আমাকে আপনাদের প্রতিনিধি হিসেবে চেয়েছিলেন আপনাদের উদ্দ্যেশে বলছি, জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন নীতিমালা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আপনাদের সাথে নিয়ে পিরোজপুরকে এগিয়ে নেয়ার সর্বাত্মক চেষ্টা করেছি। প্রতিটি গ্রামে গ্রামে গিয়ে আপনাদের কাছে জননেত্রী শেখ হাসিনার যে উন্নয়ন বার্তা পৌঁছে দিয়েছি তা হৃদয়ে ধারণ করুন এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ তথা বঙ্গবন্ধুর কন্যা। শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থীকে জয়যুক্ত করার লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করুন। মনে রাখবেন, নৌকার বিজয় মানে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের বিজয়, জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত শক্তিশালী করা। শান্তি ও উন্নতি, নৌকার বিজয় মানে মুক্তি ও অগ্রগতি।
তাই নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে।সময়ের প্রয়োজনে সব দুঃখ কষ্ট ভুলে নিজেকে আতœনিয়োগ করুন নৌকার বিজয়ে। কারণ নৌকার বিজয় মানেই আমাদের বিজয় মুক্তিযুদ্ধের বিজয়।

যে প্রবল ভালবাসার বন্ধনে আপনারা আমাকে আবদ্ধ করেছেন ইচ্ছা করলেও আপনাদের কাছ থেকে দূরে থাকা আমার পক্ষে সম্ভব নয়।
সারা জীবন এভাবেই আপনাদের পাশে থেকে কাজ করে যাব ইনশাআল্লাহ।
আপনারা ভাল থাকুন, সুস্থ থাকুন। অদূর ভবিষ্যতে সৃষ্টিকর্তা অবশ্যই আপনাদের মনের আশা পূরন করবেন।
আপনারা সকলে আমার নেত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া করবেন।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন