মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি🔹

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় উপজেলা বিএনপির সদ্য ঘোষিত কমিটি প্রত্যাখ্যানের ঘোষণা দিয়ে ইউনিয়ন কমিটির নেতারা। আজ শনিবার উপজেলার ১১ ইউনিয়ন কমিটির নেতা কর্মীরা জরুরী সভা করে কাউন্সিল ছাড়া নতুন গঠন অগণতান্ত্রিক বলে উল্লেখ করে সদ্য ঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়েছেন।
মঠবাড়িয়া বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে ১১ ইউনিয়ন কমিটির জ্যৈষ্ঠ নেতাদের সমন্বয়ে এক সভায় এ দাবি জানানো হয়।
এসময় কাউন্সিল ছাড়া সদ্য ঘোষিত মঠবাড়িয়া উপজেলা বিএনপির কমিটিকে পকেট কমিটি আখ্যা দিয়ে দলের তৃণমূলের ত্যাগী নেতা কর্মীদের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

দলীয় সূত্রে জানাগেছে, নয় বছর পর সম্মেলন ছাড়াই গত ১১ জুলাই জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উপজেলা ও পৌর বিএনপির আংশিক কমিটির অনুমোদন দেন। গত সোমবার রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে কমিটি গঠনের বিষয়টি প্রকাশ পেলে বিএনপির স্থানীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে মতবিরোধ সৃষ্টি হয়। নতুন কমিটির সভাপতিসহ অনেক নেতা সম্মেলন ছাড়া কমিটি মানেনা বলে জানিয়েছেন। অনেকে এটিকে পকেট কমিটি বলে মন্তব্য করেছেন। এমন অবস্থায় বিরোধ না মিটিয়ে কাউন্সিল ছাড়া কমিটি গঠনকে দলে আরও বিভক্তি ডেকে আনতে পারে আশংকা করছেন স্থানীয় নেতা কর্মীরা।
সদ্য ঘোষিত উপজেলা বিএনপির সভাপতি রুহুল আমিন দুলাল ইউনিয়ন কমিটির সাথে একমত পোষন করে জানিয়েছেন, দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। এ নির্দেশ উপেক্ষা করে দলীয় গঠনতন্ত্র পরিপন্থী সম্মেলন ছাড়া কমিটি মানিনা। তৃনমুলের নেতা-কর্মীদের মতামত নিয়ে ঘোষিত এ কমিটির বিরুদ্ধে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও মহাসচিবকে লিখিত ভাবে জানানো হবে।
তবে উপজেলা বিএনপির সদস্য ঘোষিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক কে.এম হুমায়ূন কবীর বলেন, দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে দল সুসংহত করা যায়না। যারা দলের সিদ্ধান্ত মানতে নারাজ তাদের দলের প্রতি আনুগত্য থাকেনা।

প্রসঙ্গত,মঠবাড়িয়া উপজেলা বিএনপি দীর্ঘদিন ধরে দুই ভাগে বিভক্ত। বিবদমান দুই পক্ষের দলীয় অফিস আলাদা তেমনি কেন্দ্র ঘোষিত সকল কর্মসূচি দুই পক্ষে পৃথকভাবে পালন করে আসছেন। দলের অভ্যন্তরীণ বিরোধ মেটাতে কেন্দ্রীয়ভাবেও চেষ্টা করে সমাধান মেলেনি। ফলে সাধারণ নেতা কর্মীরা দলের প্রতি ক্ষুব্দ । এমন অবস্থায় বিরোধ না মিটিয়ে কাউন্সিল ছাড়া কমিটি গঠনে নতুন করে দলে আরও বিভক্তি ডেকে আনতে পারে এমন আশংকা দলের ত্যাগী নেতা কর্মীদের। বিবাদমান এ দুই পক্ষের একটি অংশ দলের নতুন কমিটির সভাপতি রুহুল আমীন দুলালের নেতৃত্বে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কওে কমিটি গঠনের দাবি করছেন।

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন