মোস্তাফিজ বাদল 🔹

বিষখালী নদী ভাঙা মানুষ গৃহবধূ রুবি। সহায় সম্বলহীন রুবি গাভী পালন আর দিনমজুরী করে জীবিকা চালান। স্বামী সগীর মিয়াও দিনমজুর। বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা সংগ্রাম থেকে ত্রাণ সহায়তায় গৃহহীন রুবি কোনমতে চার সদস্যের পরিবার নিয়ে বেঁচে আছেন। দুই মেয়ে নিয়ে চার সদস্যের রুবির মাথাগোঁজার ঠাই হয়।  বছ দুই আগে একটি বেসরকারী সংস্থা থেকে ঋণ নিয়ে একটি লাল রঙের গাভী কিনেছিল সে। দিনে দিনে গাভীটি অনেক বড় হয়েছে। যত্ন করে স্বপ্ন বুনছিল রুবি। গাভীটি দুগ্ধবতী হবে। গোয়ালে আস্তে আস্তে গরু বাড়লে একটা খামার গড়ে ‍উঠবে। দুই  মেয়েদের বিয়ে সেই সাথে  সংসার সমৃদ্ধ হবে। অনেক আশা ও  স্বপ্ন ছিল গাভীটি নিয়ে। কিন্তু দুর্ভভাগা রুবির সে স্বপ্ন পুড়ে ছাড়খার হয়ে যায়। আজ সোমবার বিকালে হঠাত সড়কের ধারে ঘাস খেতে খেতে অজ্ঞাত রোগে প্রাণের গাভীটি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। মৃত গাভীর পাশে বসেই কাঁদছে শোকার্ত রুবি।

বরগুনার বামনা উপজেলার লঞ্চঘাট এলাকার অতিদারিদ্র রুবি বেগমের গাভীর জন্য কান্না পথচারী মানুষকে ব্যাথিত করে। সড়কের পাশে মৃত গাভীর নির গাভীটি ধরে অবিরত কাঁদছে রুবি, ‘অাল্লাহ মোর সোনার চাঁনরে ফিরাইয়া দ্যাও – অামারে নিয়া যাও “।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, রুবি অতিদরিদ্র । একমাত্র গাভীটি হিারিয়ে সে অসহায় হয়ে পড়েছে। সহৃদয় মানুষ পাশে দাড়ালে রুবির একটা গাভী কিনে দেওয়া সম্ভব।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন