দেবদাস মজুমদার <>

বেশীর ভাগ সময় সড়কের পাশেই দেখা মেলে। ডালে ঝাড়বাতির মতো ঝুলে থাকে। উজ্জল হলদে বর্ণিল ফুলদল। বাতালে যখন দোলে দারুণ শোভন লাগে । গোছা গোছা হলদে আভার ফুলের পাশেই তার আশ্চর্য লাঠি সদৃশ ফল ঝুলে থাকে। দারুণ হলদে আভার এ ফুলের পরিচিতি সোনালু । আমাদের গ্রামদেশে সোনাইল আবার অঞ্চলভেদে এর পরিচিতি আবার বাঁদর লাঠি ও সোঁদাল,  । এখন সোনালু ফোঁটার ভরা মৌসুম।

আমাদের গাঁয়ের গৃহস্থ বাড়ি ও রাস্তার পাশে প্রচুর  সোনালু গাছ দেখা যেত। এখন দেখা মেলে কম। এ গাছের কাঠ খুব একটা দরকারী বা দামি নয় বলেই  সোনালু গাছ তেম কেউ  লাগান না। ফলে দৃষ্টি নন্দন সোনালু বিস্তার কমছে।

গ্রীষ্মে ঝাড়বাতির মতো ঝুলে থাকা বড় বড় থোকায় হলুদ-সোনালি রঙের এ ফুলগুলো পরিবেশে মুগ্ধতার আবহ নিয়ে আসে। বিশেষ করে সড়কের দুই পাশে তা মনোরম শোভ বর্ধন করে। আমাদের মঠবাড়িয়ার সাপলেজা-বাবুরহাট সড়ক ও মঠবাড়িয়া-ডৌয়াতলা সড়কের পাশে কয়েকটি গাছে এখন সোনালু ফুল শোভা বর্ধন করেছে।

বাহারী ফুল সোনালু। শীতকালে সব পাতা ঝরার পর বসন্তে একেবারেই মৃতের মতো দাঁড়িয়ে থাকে গাছটি। গ্রীষ্মের শুরুতে দু-একটি কচিপাতার সঙ্গে ফুল ফুটতে শুরু করে। হলুদ সোনালি রঙের অসংখ্য ফুল সারা গাছজুড়ে ঝাড় লণ্ঠনের মতো ঝুলতে থাকে।

সোনালু  গাছের ফল বেশ লম্বা, লাঠির মতো গোল, তাছাড়া ফল, ফুল ও পাতা বানরের প্রিয় খাবার। এজন্য এ ফুলের আরেক নাম বান্দরলাঠি। ফলের শাঁস বিভিন্ন রোগের ওষুধ হিসেবে কাজে লাগে। বাকল, রঙ ও ট্যানিংয়ের কাজে ব্যবহৃত হয়। পাশাপাশি এক সারিতে দু-তিনটি গাছে যদি ফুল ফোটে তাহলে সে দৃশ্য বেশ উপভোগ্য হয়ে ওঠে।   শোভন সোনালু ফুলের ইংরেজি নাম গোল্ডেন শাওয়ার।

সোনালু বা বাঁদরলাঠি (বৈজ্ঞানিক নাম: Cassia fistula এবং Albizia inundata) সোনালী রঙের ফুলবিশিষ্ট বৃক্ষ। উদ্ভিদের শ্রেণীবিন্যাসে Fabaceae গোত্রের এ বৃক্ষের ফল লম্বাটে। সোনালী রঙের ফুলের বাহার থেকেই ‘সোনালু’ নামে নামকরণ। ইংরেজি ভাষায়ও একে বলা হয় ‘golden shower tree’ বা স্বর্ণালী ঝর্ণার বৃক্ষ।

ছবি >> লেখক

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন