মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি >>

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় মো. আব্দুল লতিফ ঘরামী(৫২) নামে সাবেক এক ইউপি সদস্যকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। আজ রোববার সকাল সোয়া ছয়টার দিকে উপজেলা সদর ইউনিয়নের বকশীরঘটিচোরা গ্রামের আন্ধারমানিক তুলাতলা সড়কের ওপর এ হত্যাকান্ড ঘটে। এসময় ওই ইউপি সদেস্যর সঙ্গে তার আপন ভাইয়ের ছেলে ইদ্রীস ঘরামী(৩৫) বাঁচাতে এলে তাকেও নৃশংসভাবে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। আহত ইদ্রীসের অবস্থা এখন সংকটজনক।

পুলিশ ও পরিবারের স্বজনরা হত্যাকান্ডের কারন ও হত্যাকারীদের এখনও কোন তথ্য দিতে পারেনি। তবে ধারনা করা হচ্ছে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পরিকল্পিতভাবে প্রতিপক্ষরা মিলে এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে।
নিহত বৃদ্ধ আবআদুল লতিফ ঘরামী মঠবাড়িয়া সদর ইউনিয়নের বকশীর ঘটিচোরা ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য ছিলেন। তিনি ওই গ্রামের মৃত মজিদ ঘরামীর ছেলে। সে দুই ছেলে ও দুই মেয়ে সন্তানের জনক।

পুলিশ ও স্থানীয়দের সূত্রে জানাগেছে, উপজেলা সদর ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য লতিফ ঘরামী তার আপন ভাই আলেপ ঘরামীর ছেলে ইদ্রীস ঘরামীকে নিয়ে পিরোজপুর জেলা জজ আদালতে একটি মামলায় হাজিরা দিতে যাচ্ছিলেন। আজ রোববার ফজরের নামাজ পড়ে তারা বাড়ি থেকে বের হন। কিছু দুর যাওয়ার পড়ে স্থানীয় আন্ধারমানিক তুলতলা নির্জণ সড়কের পাশে ওত পেতে থাকা একদল অজ্ঞাত দুর্বৃত্ত তাদেও পথরোধ করে। এরপর দুর্বৃত্তরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে লতিফ ঘরামীকে নৃশংসভাবে কোপাতে থাকে । চাচাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে দুর্বৃত্তরা ইদ্রীসকেও কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সজ্ঞাহীন অবস্থায় দুইজনকে সড়কের ওপর ফেলে পালিয়ে যায়। কিছুক্ষণ পর স্থানীয় চৌকিদার আব্দুল হক ওই সড়ক দিয়ে উপজেলা সদরে যাওয়ার পথে দুইজনকে পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় মানুষের সহযোগিতায় উদ্ধার কওে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাথ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। পওে চিকিৎসক আহত দুইজনকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে। সেখানে যাওয়ার পথে বৃদ্ধ আব্দুল লতিফ ঘরামীর মৃত্যুঘটে। তার ভাইয়ের ছেলে ইদ্রীস আশংকাজনক অবস্থায় বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহতর পরিবারে এখন শোকের মাতম চলছে।

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচারজ মো. গোলাম ছরোয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, নিহতর লাশ উদ্ধার করে বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের প্রক্রিয়া চলছে। এ হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘটনে পুলিশ তদন্ত চালাচ্ছে।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন