মেহেদী হাসান(সাদা কাঁক)▶️

জাতিগত ভাবে আমাদের বাঙালিদের প্রভাব- প্রতাপের শেষ নেই। আমরা বীরের জাতি। তবুও, আমার দৃষ্টিতে মৌলিক যে অভাব অত্যন্ত স্পষ্টভাবে পরিলক্ষিত হয় তা হলো বুদ্ধিবৃত্তি অর্থাৎ মেধার অভাব। লক্ষ্য করলে স্পষ্ট দ্যাখা যায়, এই বুদ্ধিবৃত্তিক আরষ্টতার কাছেই তুলনমূলক আমাদের থেকে অনেক পরে স্বাধীন রাষ্ট্র ও সমাজ ব্যাবস্থার কাছেও আমরা পিছিয়ে আছি। যুগে যুগে লোলুপ প্রতাপশালীরা তাদের আত্মস্বার্থের কথা ভেবে অশিক্ষা ও ভুল শিক্ষার বীজ বপন করছে এখানে। বেশিরভাগ জনগণ যথাযথ শিক্ষা না পাওয়ার কারণে বিশাল অজ্ঞতার সাথে জীবন ধারণ করে। ফলে কখনও কখনও দ্যাখা যায় তারা মাথা গরম করে হুটহাট উদ্ভট সিদ্ধান্ত নিতে দ্বিধা করে না।

স্পষ্ট দ্যাখার চেষ্টা করলে বিশ্লেষণাত্বক দৃষ্টিতে আমরা দেখতে পাই যে, এই রাষ্ট্রের একটা বিশাল গোষ্ঠী এখনও আবেগ তাড়িত। আবেগিক ভাবে দূর্বল করতে পারলে তাদের দ্বারা যেকোনো অনিয়ম নিত্য স্বাভাবিক ব্যপার হিসেবে দাড় করা যায়। এই বোকা শ্রেণির মানুষ গুলো ভাবনা তাড়িত না হয়ে আবেগের তাড়নায় সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে। আর বুদ্ধির দূর্বলতার সুযোগে তাদের দ্বারা সবকিছুই করানো সম্ভব। একারণেই পৃথিবীর এক শ্রেণির অজ্ঞদের দ্বারাই তৃতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সূত্রপাত ঘটানো হবে। স্বার্থান্বেষি শ্রেণি তাদের কুবুদ্ধি ও বিকৃত জ্ঞানের শক্তি পরীক্ষা করার প্রয়াসেই বোকা শ্রেণির মানুষদের উপর বিভিন্ন খারাবি চাপিয়ে দেয়। আর সেসমস্ত অকর্ম বুদ্ধিহীনেরা মাথায় পেতে নেয়। কারণ, যথাযত চিন্তা করার মতো মগজ ও মনন তাদের থাকে না। গোড়াতেই তাদেরকে অজ্ঞতার সমুদ্রের ফেলে রাখা হয়।
বংগের রাজনৈতিক পরিবেশে বুদ্ধিমানের চেয়ে পেশী শক্তিশালীদের বিস্তার অত্যন্ত বিদ্যমান। তাদেরকে বুদ্ধি বৃত্তিক শিক্ষা না দিয়ে পেশীর জোরে সব সম্ভব শিখিয়ে গড়ে তোলা হয়। পেশীর শিক্ষা প্রয়োগ মানেই ধ্বংস, অরাজগতা। আত্মস্বার্থ চরিতার্থের জন্য এক শ্রেণি এদের ধ্বংসে মদদ দেয়। প্রতাপ ও প্রভাবশালীরা নিজেদের ধ্বংসের ভয়ে বুদ্ধির মুক্তি থেকে বোকা জনগণকে দমিয়ে রাখে। একটি রাষ্ট্র ও সমাজে বুদ্ধির মুক্তি মূলত শান্তি ও সুস্থতা আনে। তাই, সৎ ও সুবুদ্ধি সম্পন্ন সবাইকে রাজনীতির সাথে জড়িত হবার আহ্বান করবো। বুদ্ধির সুব্যাবহারে মুক্তি আসবেই।

আমাদের অবশ্যই জ্ঞানের চর্চার্থে বই পড়বেন। একদিন আপনাদের হাতেই আলো জ্বলে উঠবে। মনে রাখবেন, বন্ধ্যা সমাজের মুক্তি প্রাজ্ঞ জনেরই হাতেই।

লেখক > কবি ও পাঠাগার আন্দোলন কর্মী

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন