কাউখালী সংবাদদাতা > পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার শিয়ালকাঠি ইউনিয়নের নির্বাচনী গণসংযোগ চলাকালে জাতীয়পার্টির (জেপি) ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্কদের মধ্যে সংগর্র পর সস্বতন্ত্র প্রার্থীর ভাই মো. কামাল পারভেজ গাজীকে অস্ত্রসহ পুলিশ গ্রেফতার করেছে। সংঘর্ষের উভয় পক্ষের ১০জন আহত হয়।

আজ শুক্রবার দুপুরে স্থানীয় পাঙ্গাশিয়া বাজারে জনতার কবল থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। এ সময় তার সঙ্গে বহনকৃত অবৈধ একটি দেশি রিভলভার ও ৮ রাউন্ড তাজা গুলি উদ্ধার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত কামাল গাজী শিয়ালকাঠি ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান মো. সিদ্দিকুর রহমান গাজীর (আনারস প্রতীক) ছোট ভাই।

থানা ও স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, আজ শুক্রবার দুপুর একটার দিকে শিয়ালকাঠি ইউনিয়নের জাতীয় পার্টি (জেপি) চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মো. দেলোয়ার হোসেন সিকদারের (সাইকেল প্রতীক) কর্মী সমর্থকরা শংকরপুর গ্রামে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছিল। এ সময় ওই ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. সিদ্দিক গাজী ও তার ভাই কামাল গাজী তাদের কর্মী সমর্থক নিয়ে আনারস প্রতীকের নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছিলেন। এক পর্যায় দুইপক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় জনতা কামাল পারভেজকে আটক করে। পরে জনতা তাকে স্থানীয় পাঙ্গাশিয়া বাজারে নিয়ে আটক করে রাখে। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে জনতার কবল থেকে কামাল গাজীকে অস্ত্র ও গুলিসহ গ্রেফতার করে।

কাউখালী থানার উপ পরিদর্শক মো. মনির হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, দুই পক্ষের সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে জনতার হাতে আটক স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাই কামাল গাজীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এসময় তার সঙ্গে থাকা একটি দেশি রিভলবার ও ৮ রাউন্ড গুলি জব্দ করা হয়।

এ ব্যাপারে জেপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. দেলোয়ার হোসেন তালুকদার অভিযোগ করেন, স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী সিদ্দিকুর গাজী ও তার ভাই অস্ত্র উঁচিয়ে তার কর্মী সমর্থকদের ওপর হামলা চালায়। এসময় জনতা কামাল গাজীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

তবে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী সিদ্দিক গাজী এ অভিযোগ অস্বীকার করে দাবি করেন, দুপুর একটার দিকে তিনি ও তার ছোট ভাই কর্মী সমর্থক নিয়ে শংকরপুর গ্রামে প্রচারণা চালানোর সময় জেপি প্রার্থী (সাইকেল প্রতীক) দেলোয়ার হোসেনের কর্মী সমর্থকরা পিছন দিক দিয়ে অতর্কিতে হামলা চালায়। এক পর্যায়ে তারা তার ছোট ভাইকে জোর করে তুলে নিয়ে স্থানীয় পাঙ্গাশিয়া বাজারে আটক করে রাখে। এরপর পরিকল্পিতভাবে তার হাতে অবৈধ অস্ত্র ও গুলি তুলে দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।

এদিকে খবর পেয়ে বরিশাল র‌্যাব- এর একটি টহলদল ঘটনাস্থলে অবস্থান নিয়েছে। বিকালে পিরোজপুর জেলার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোল্লা আজাদ হোসেন ও কাউখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন