পিরোজপুর প্রতিনিধি <>
পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে শ্বশুর বাড়ি থেকে নিখোঁজের দুই দিন পরে ধান ক্ষেতের মধ্যে যুবকের মাটি চাপা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ রোববার দুপুরে ইন্দুরকানী উপজেলার পাড়েরহাট ইউনিয়নের দড়িচর ইকর বুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন ধান ক্ষেতের মধ্যে তিন ফুট গভীর গর্তে মাটি চাপা দেয়া অবস্থায় নিখোঁজ সাগর মুন্সির লাশ পাওয়া যায় বলে জানান ইন্দুরকানী থানার ওসি মো: হাবিবুর রহমান। নিহত সাগর মুন্সির (২১) মোড়েলগঞ্জ উপজেলার তেতুলবাড়িয়া ইউনিয়নের সুতালরি গ্রামের আমজাদ মুন্সির ছেলে।
এ ঘটনায় পুলিশ ইন্দুরকানী উপজেলার পাড়েরহাটের পূর্ব বাড়ৈখালী গ্রামের মৃত জলিল মোল্লার ছেলে আজাদ মোল্লা নামের এক যুবককে আটক করেছে। আটক যুবক আজাদ মোল্লা নিহত সাগর মুন্সির আপন খালোতো ভাই।
সাগরের শ্বাশুরি ফাহিমা বেগম জানান, গত ৭ থেকে ৮ মাস আগে সাগর ও তার খালাত ভাই চড়িচর ইকরবুনিয়া গ্রামের স্বপন সিকদারের ছেলে লাভলু সিকদার ঢাকায় একটি কোম্পানিতে সিকিউরিটি গার্ডের চাকরি করত। সে সময় লাভলু ওই প্রতিষ্ঠান থেকে একটি গ্যাসের সিলিন্ডার চুরি করে। সাগরের কাছে কর্তৃপক্ষ সিলিন্ডারের কথা জানতে চাইলে সে সিলিন্ডারটি লাভলু চুরি করেছে বলে জানায়। এ খবর জেনে লাভলু সাগরের সাথে তর্কে জড়ায়। কয়েক মাস আগেও লাভলু একবার সাগরের উপর হামলা করে ছিল। গত শুক্রবার বিকালে সাগর দড়িচর ইকর বুনিয়া গ্রামে লাভলুর বাড়ি সংলগ্ন একটি দোকানে কলা বিক্রি করতে যায়। পরে সাগর বাড়ৈখালী বাজারের দিকে যাওয়ার সময় লাভলু সাগরের উপর হামলা চালায়। সেখান থেকে উঠিয়ে লাভলুদের বাড়িতে নিয়ে যায়। এর পর থেকে সাগর নিখোঁজ থাকে।
এ নিখোঁজের বিষয়ে সাগরের শ্বাশুরি ফাহিমা বেগম শনিবার ইন্দুরকানী থানায় একটি জিডি করেন।
ইন্দুরকানী থানার ওসি হাবিবুর রহমান জানান, আটক আজাদ মোল্লার দেয়া তথ্য মোতাবেক আজাদের খালাতো ভাই লাভলুদের বাড়ির পেছনের ধান ক্ষেতের মধ্যে তিন ফুট গভীর একটি গর্তের মধ্যে মাটি চাপা দেয়া অবস্থায় সাগরের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সাগরকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আজাদ। সাগরের লাশ পিরোজপুর মর্গে

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন