পিরোজপুর প্রতিনিধি <>
পিরোজপুরের নাজিরপুরে তৌহিদা আক্তার (২৯) নামের এক গৃহবধুকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত ওই গৃহবধু উপজেলার শ্রীরামকাঠী ইউনিয়নের ভীমকাঠী গ্রামের হাফেজ মো. হারুন-অর রশিদ শেখের কন্যা ও একই ইউনিয়নের উত্তর জয়পুর গ্রামের সাইদুল শেখের স্ত্রী।আজ শনিবার বেলা ১২টার দিকে নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত ওই গৃহবধুর সানজিদা আক্তার (৮) নামের এক কন্যা ও মো. সাজিদ হোসেন নামের ৯ মাসের এক পুত্র সন্তান রয়েছে।
নিহত গৃহবধুর বড় ভাই মো. এনায়েত শেখ অভিযোগ জানান, গত প্রায় ১ যুগ আগে তার ছোট বোন নিহত তৌহিদার সাথে স্থানীয় উত্তর জয়পুর গ্রামের রিয়াজ উদ্দিন শেখের পুত্র মো. সাইদুল শেখের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর বিভিন্ন সময় সাইদুল তাকে যৌতুকের জন্য চাপ দিতেন। এ নিয়ে তার বোন তৌহিদাকে ভগ্নিপতি প্রায়ই মারধর করেন ও বোনের অনুরোধে তাকে তার চাহিদা মত যৌতুকের টাকা দিতে হয়। শুক্রবার একই ভাবে তাকে যৌতুকের জন্য চাপ দিলে বোন ও ভগ্নিপতির মধ্যে কথা কাটা-কাটি হয়। এ ঘটনায় ভাগ্নিপতি সাইদুল ওই দিন রাতে তাকে মারধর করে ঘর থেকে বের করে দেন। পরে ওই রাতের কোন এক সময় সাইদুল ও তার পরিবারের লোকজন তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে বসত ঘরের পাশে থাকা গোয়াল ঘরের আড়ার সাথে ঝুলিয়ে রাখে। ঘটনাটি তারা আমাদের না জানালেও সকাল সাড়ে ৬টার দিকে ভাগ্নী (নিহতের কন্যা) সানজিদা আমাদের মুঠো ফোনের মাধ্যমে তার মা’র নিহতের খবর জানায়। আজ শনিবার সকাল ৭টার দিকে আমরা ওই বাড়িতে যাই ও বোনকে গোয়াল ঘরের আড়ার সাথে গলায় গামছা দিয়ে ঝুলিয়ে রাখা অবস্থায় দেখি। এ সময় তার দু’পা মাটিতে ছোঁয়ানো ছিলো।
নিহতের সুরাত হাল করা থানা পুলিশের এসআই মো. জসিম উদ্দিনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, ওই গৃহবধুকে গোয়াল ঘরের আড়ার সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলানো অবস্থায় পাওয়া গেছে। ময়না তদন্তের পরে বিস্তারিত জানা যাবে।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন