মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি 🔹

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ফাহিমা আক্তার(২৬) নামে এক গৃহবধুকে শ^শুর বাড়ির লোকজন লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর জখম করেছে। নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধু গত চার দিন ধরে মঠবাড়িয়া উপজেলাা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধিন রয়েছেন। নির্যাতিত গৃহবধূ উপজেলার দক্ষিণ মিঠাখালী গ্রামের মো. শাহাদাৎ হোসেনর স্ত্রী।

এ ঘটনায় নির্যাতিত গৃহবধু ফাহিমা আক্তার বাদী হয়ে শ্বশুর, শাশুরী, ভাসুর ও ননদসহ ৫জনকে আসামী করে শনিবার রাতে মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ এমিলি আক্তার নামে অভিযুক্ত এক আসামীকে গ্রেফতার করেছে।

মামলা সূত্রে জানাযায়, উপজেলার দক্ষিন মিঠাখালী গ্রামের গৃহবধু ফাহিমার স্বামী মো. শাহাদাৎ হোসেন ২০১৭ সালে ঢাকা সবুজবাগ থানার একটি অস্ত্র মামলায় জেল হাজতে যায়। বর্তমানে সে জেল হাজতে রয়েছেন। এ সুযোগে ওই মামলায় জামিন করিয়ে দেওয়ার নামে ওই গৃহবধূর তার শ্বশুর আদম আলী ও ভাসুর মহারাজ পঞ্চায়েত মিলে ফাহিমার কাছ থেকে ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। টাকা নেওয়ার পর ফাহিমার স্বামীর জামিন করাতে না পারায় সে তাদের কাছে সমুদয় টাকা ফেরত চান। এনিয়ে গত বুধবার দুই পক্ষে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ভাসুর, ননদ, শ্বশুর ও শ্বাশুরী মিলে লোহার রড দিয়ে ফাহিমাকে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। এসময় গৃহবধুর ডাকচিৎকারে প্রতিবেশী বাড়ির লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মঠবাড়িয়া থানার উপ-পরিদর্শক মো. জাহিদ হোসেন জানান, নির্যাতিত ওই গৃহবধ শ^শুর বাড়ির ৫জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় জড়িত এ্যমিলি নামে একজন গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ তাকে রোববার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।
অপর আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

SIMILAR ARTICLES

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন