মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি >>

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় চাঞ্চল্যকর ইউপি সদস্য ইদ্রিস তালুকদার হত্যা চেষ্টা মামলায় ১৯ আসামীকে জেলহাজতে পাঠিয়েছে আদালত।
আজ মঙ্গলবার ২০ জন আসামী মঠবাড়িয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন জানালে বিজ্ঞ আদালত চার জনের জামিন মঞ্জুর করে ১৬জনকে জেল হাজতে প্রেরণের নিদের্শ দেয়। অন্য দিকে সোমবার রাতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মঠবাড়িয়া থানার সাব-ইন্সেপেক্টর মোঃ নূর আমিন উপজেলার ভগিরথপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে ওই মামলার এজাহারনামীয় ১নং আসামী মোঃ শাহিন তালুকদার (৪৫), সহ স্বপন তালুকদার (৫০), আল মামুন ওরফে গলাকাটা মামুন (৩২) কে গ্রেফতার করে পরে আজ মঙ্গলবার সকালে আদালতে সোর্পদ করলে বিজ্ঞ আদালত তাদের জেল হাজতে প্রেরণ করেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সাব-ইন্সেপেক্টর মোঃ নূর আমিন জানান, আজ মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার কালিরহাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে এজাহারনামীয় আরো ২ আসামী মেহেদী হাসান (৩৭) ও মাছুম তালুকদার (৩৮) কে গ্রেফতার করে।

মামলাসূত্রে জানা গেছে, গত ২৬ ডিসেম্বর উপজেলার ২নং ধানীসাফা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ইদ্রিস তালুকদার সন্ধ্যায় ইউনিয়ন পরিষদ থেকে মোটরসাইকেল যোগে বাড়ি ফেরার পথে তুষখালী লঞ্চঘাট সংলগ্ন বাস স্ট্যান্ডে অভিযুক্ত আসামীরা পরিকল্পিত ভাবে হামলা চলিয়ে লোহার রড, হাতুড়ি ও রামদা দিয়ে পিটিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে দু’পা ও ডান হাত ভেঙে দেয়। পরে তাকে মৃত ভেবে স্থানীয় শহিদুল তালুকদারের বাড়ির পিছনে ফেলে রেখে যায়।পরে স্থানীয়রা গুরুতর অবস্থায় উদ্বার করে পিরোজপুর হাসপাতালে ও পরে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তিকরলে চিকিৎসকরা তার জীবন বাচাতে দুই পা কেটে ফেলেন। বর্তমানে সে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছেন।

এঘটনায় ইউপি সদস্য ইদ্রিস তালুকদারের স্ত্রী সেলিনা বেগম বাদী হয়ে ২৮ জনকে আসামী করে গত ২৭শে ডিসেম্বর মঠবাড়িয়া থানায় একটি হত্যা চেষ্টার মামলা দায়ের করেন।

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ কে.এম তারিকুল ইসলাম বলেন, ইউপি সদস্য হত্যা মামলায় অভিযুক্ত ২৮ আসামীর ১৯ আসামীকে আদালত জেল হাজতে পাঠিয়েছেন। এছাড়া আরও দুই আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকী আসামীরা পলাতক । তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন