মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি >>
পিরোজপুরর মঠবাড়িয়ায় হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় টিকিকাটা ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রিপনসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে সম্প্রতি আদালতে চার্জশীট দাখিল করেছে থানা পুলিশ।
চার্জশীটভূক্ত অন্যান্য আসামীরা হলেন ইউপি সদস্য জসিম মৃধা, ছাত্রলীগ নেতা এনামুর রহমান মনির, সাবেক ইউপি সদস্য বাবুল মিয়া, যুবলীগ কর্মী তকদির মাতুব্বর, কবির হোসেন, মারুফ হোসেন, এনায়েত হোসেন, জুয়েল ও মোস্তফা। ওই মামলায় আনীত অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় স্থানীয় হাসান মিয়া, সোহাগ মিয়া ও রাজীবকে অত্র মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।
মামলা সূত্রে জানাযায়, উপজেলার বাইশকুড়া বাজারে একতা সংঘ ক্লাবের আধিপত্য নিয়ে কলেজ ছাত্রলীগ নেতা রুবেল আকন ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রিপন জমাদ্দারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। ওই বিরোধের জের ধরে গত বছরের ১৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় ইউপি চেয়ারম্যানের নের্তৃত্বে ২০/২৫ জনের একটি দল বাইশকুড়া বাজারে এসে লোহার রড, হকস্টিক, চাইনিজ কুড়াল দিয়ে উল্লেখিত ক্লাবটি ভাংচুর করে। এসময় রুবেল আকন বাঁধা দিলে তাকে মারধর করা হয়। এসময় সংঘবদ্ধদল বাইশকুড়া একতা সংঘ ক্লাবের অফিসটি তছনছ করে গুড়িয়ে দেয়। পরে আসামীরা রুবেলকে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। পরে পুলিশ ওই দিন রাতে আসামীদের কবল থেকে অপহৃত রুবেলকে উদ্ধার করে এবং ভাংচুর ছবি গুলো জব্দ করে।

এ ঘটনায় আহত ছাত্রলীগ নেতা রুবেলের পিতা পান্না আকন বাদী হয়ে ঘটনার দিন গভীর রাতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রিপনসহ ১৩ জনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেন।

এব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রিপন জমাদ্দার তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, উক্ত ঘটনার সময় আমি স্থানীয় আ’লীগ অফিসে বসে সালিশ করছিলাম। আমাকে রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য প্রতিপক্ষরা ওই মামলায় আসামী করেছে।

মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন